প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নাদেরা সুলতানা নদী: এখন যা যা ডায়ালগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াবে

নাদেরা সুলতানা নদী: ইকবাল কখনো কোনোভাবেই কোনো ধর্ম অনুসারী হতে পারে না। (নামটা অন্য ধর্ম পরিচয় বহন করলে কী হতো এই প্রশ্ন করা যাবে না, উত্তর জানা)। অনেকেই বলবে, ইকবাল হয়তো শুধুই এক নাটকের নাম (কিন্তু কে বা কারা তার পেছনে এই উত্তরের জন্য জনগণ যেভাবে অবমাননার জন্য নেমেছে সেভাবে কিন্তু কিছুতেই নামবে না, না না এ হতে পারে না, সবার ওপরে আমরা সত্য তাহার ওপর কেউ নেই হতে পারে না)। অবমাননার মিথ্যা অপবাদে, দায়ে অন্য যা কিছু অন্যায়, অত্যাচার, হত্যা, লুণ্ঠন হয়ে গেছে, আমাদের মতো গুটিকতক মানুষ লজ্জিত, ক্ষুব্ধ, ব্যথিত হলেও, বাকি সব জনতা এখন না কিছু দেখবে, না শুনবে- আর ইন্টারেস্ট নেই, জোস তো সব জায়গায় সবসময় জেগে ওঠে না! (এবং এই সময়ের নেপথ্য সংগীত) ‘চুপ চুপ অনামিকা চুপ কথা বলো না’। (অথচ মাঝ রাতে কে ধর্ম অবমাননা করার জন্য কোথায় কে কী করলো, সে পাগল হোক, ছাগল হোক (!) তার জন্য জিহাদী জনতা ক্যামেরা নিয়ে দাঁড়িয়ে ভিডিও করে লাখো অনুভ‚তিকে নাড়া দিয়ে, ইউটিউব ফাটিয়ে ফেসবুকে প্রতিবাদের সুনামি ছড়িয়ে দিতে পাঁচ মিনিট লাগবে না- (ও আচ্ছা সরকার কিন্তু এগুলো দেখার মতো সময় পান না, এতো উন্নয়ন নিয়ে ব্যস্ততা এসব দেখার সময় কোথায়)।

এই যে আমরা বুঝে না বুঝে সেই জনতাকে সাহস দিয়ে যাচ্ছি যা ইচ্ছা তাই করার, ভাবতে সাহস যোগাচ্ছি, ‘তবুও আমরাই সেরা, হুম- আমরা যে ধর্ম পালন করি আমাদের ওপর কেউ কোনো কথা বলতে পারবে না, সে বিশ্বের যেকোনো আনাচে কানাচে থাকুক, তুলে আনবোই- ঘৃণার আগুনে ভস্ম করে দেবো- এই কথাটি মনে রেখো, কিছুতেই উচ্চারণ করবো না, দুই একজন এমন কিছু করলে সে দায় কিছুতেই আমরা নেবো না, বলবো না এ অন্যায়, এ রকম আরেকটাও ঘটনা দেখতে চাই না আমাদের সগোত্রীয় হলেও তাকে সর্বোচ্চ বিচারের আওতায় আনতেই হবে। সরি একটু রেগে গিয়ে একটা লেকচার দিয়ে ফেললাম- কেউ কী শোনে, কেউ কী দেখে আমার অনুভব! Nadera Sultana Nadi ’র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত