প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লক্ষ্মীপুর জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত: দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

জহিরুল ইসলাম : [২] যুবলীগকে সাংগঠনিকভাবে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত শক্তিশালী ও গতিশীল করতে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল এর নির্দেশে বিভিন্ন সাংগঠনিক বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দ জেলাভিত্তিক বর্ধিত সভা শুরু করেছেন।

[৩] তারই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম বিভাগের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত যুবলীগ নেতাদের নেতৃত্বে লক্ষ্মীপুর জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের সোনার বাংলা চাইনিজ রেস্টুরেন্টে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

[৪] এদিকে জেলা যুবলীগের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় নেতাদের শুভেচ্ছা জানাতে অপেক্ষা করার সময় যুবলীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে জেলা যুবলীগের সভাপতি সালাহ উদ্দিন টিপু ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম বাবরসহ উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন।

[৫] দুপুর ১২টার দিকে রামগঞ্জ-লক্ষ্মীপুর সড়ক এলাকার বাগবাড়ি ও জেলে পল্লী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহতদের লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহর জুড়ে চরম উত্তেজনা ও আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

[৬] বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হাবিবুর রহমান পবন। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নাঈম। লক্ষ্মীপুর জেলা যুবলীগের সভাপতি এ কে এম সালাহ্ উদ্দিন টিপুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল নোমান এর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মশিউর রহমান চপল, উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক সামছুল ইসলাম পাটওয়ারী ও সহ-সম্পাদক এডভোকেট জয়নাল আবেদিন রিগ্যানসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেত্রীবৃন্দ।

[৭] বর্ধিত সভায় বক্তারা বলেন, যুবলীগ বিশ্বের অন্যতম একটি শক্তিশালী যুব সংগঠন। বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে যুবলীগের চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক এর নির্দেশে সারাদেশে কাজ করে যাচ্ছে যুবলীগ।

[৮] আপর দিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত বাবর অভিযোগ করে বলেন, জেলা যুবলীগের সভাপতি টিপু ও সাধারণ সম্পাদক নোমান তার কর্মী সমর্থকদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তাকেসহ তার ১০ জন সমর্থককে মারধর করা হয়। জেলা যুবলীগের সভাপতি সালাহ উদ্দিন টিপু অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, দলীয় সমর্থকদের ভেতরে বিএনপি-জামায়াত ঢুকে বিশৃঙ্খলতা করতে চাইলে আমরা সিনিয়ররা তা চিহিৃত করতে গেলে বাবরের সঙ্গে আমার বাদানুবাদ হয়। কাউকে মারধর করা হয়নি। দলীয় কোনো গ্রুপিং নেই বলেও দাবী করেন তিনি।

[৯] লক্ষ্মীপুর সদর থানার ওসি তদন্ত শিপন বড়ুয়া জানান, বিপুল সংখ্যক লোকের সমাগমে কিছু বিশৃঙ্খলতা (হাতাহাতি) হয়েছে। কোনো সংঘর্ষ হয়নি। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শহরজুড়ে পুলিশ সতর্ক রয়েছে। বিশৃঙ্খলা করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবেনা।

[১০] জেলা যুবলীগের আয়োজনে বর্ধিত সভায় জেলা, বিভিন্ন উপজেলা, থানা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড শাখার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বর্ধিত সভা উপলক্ষে জেলা ও বিভিন্ন উপজেলা থেকে হাজার-হাজার নেতাকর্মীর মিছিলে-মিছিলে মুখরিত ছিল সভা প্রাঙ্গণ।

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত