শিরোনাম
◈ রাজধানীতে ব্রিটিশ নাগরিকদের চলাচলে সতর্কতা জারি ◈ গরিবের জন্য ইনসুলিন নিশ্চিত করতে সম্মিলিত প্রচেষ্টার ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর ◈ বিএনপি কিছু রাজনীতি শিখেছে আমাদের সাথে যৌথ আন্দোলন করে: প্রধানমন্ত্রী ◈ ব্যারিস্টার খোকনসহ ৩৪ জনের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা ◈ করোনার সময় ছাত্রলীগ নিঃস্বার্থভাবে কাজ করেছে : জয় ◈ আমাদের শক্তি জনগণ, পেটুয়া বাহিনী লাগে না: প্রধানমন্ত্রী ◈ কাল থেকে সারাদেশে সতর্ক পাহাড়ায় থাকবে আওয়ামী লীগ: কাদের ◈ ছাত্রলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ◈ নারায়ণগঞ্জে জাপানিজ অর্থনৈতিক অঞ্চল উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ◈ গাইবান্ধা-৫ আসনের উপ-নির্বাচনে ভোট গ্রহণ ৪ জানুয়ারি

প্রকাশিত : ০৮ জুলাই, ২০২১, ১১:২০ রাত
আপডেট : ০৮ জুলাই, ২০২১, ১১:২০ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

রূপগঞ্জে আগুন : ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছেন শ্রমিকরা

নিউজ ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হাশেম ফুডসের কারখানায় আগুনের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় কারখানার ভেতরে আটকা থাকা শ্রমিকদের উদ্ধারে ধীরগতির অভিযোগ তুলে ভাঙচুর করেছেন বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা। এ সময় তারা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন।

এ অবরোধের কারণে মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) রাত সাড়ে ৯টার দিকে বিক্ষোভ শুরু করেন তারা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ এখনও চলছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উত্তেজিত শ্রমিকরা কারখানার সামনে একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর করেন। কারখানার গেট সংলগ্ন ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ইসলামী ব্যাংকের বুথও ভাঙচুর করেন তারা। এছাড়া শ্রমিকরা ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মাঝখানে ব্যারিকেড দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে রাখে রাত সাড়ে ৯টা থেকে। এ সময় শ্রমিকদের স্বজন ও উত্তেজিত জনতা ঘটনাস্থলে কর্মরত পুলিশদের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।

স্বজনদের অভিযোগ, কারখানার ভেতরে এখনও অনেক শ্রমিক আটকে আছেন। তাদের উদ্ধারের অভিযান ধীর গতিতে চলছে। এছাড়া অনেক মরদেহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ লোকচক্ষুর আড়ালে কারখানা থেকে বের করে নিয়ে যাচ্ছে।

শ্রমিকরা বলেন, আগুন লাগার পর কারখানা কর্তৃপক্ষ প্রতিটি সেকশনে থাকা সব গেট বন্ধ করে দেয়। ফলে অনেক শ্রমিক ভেতরে আটকা পড়েন। তাদের ভেতর থেকে বের করতে পর্যাপ্ত উদ্যোগ নিচ্ছে না প্রশাসন ও কারখানা কর্তৃপক্ষ। ফলে আটকে পড়া শ্রমিকদের দ্রুত উদ্ধার করার জন্য রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছেন তারা।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত রূপগঞ্জ থানার ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. নাজিমুদ্দিন বলেন, স্থানীয় কিছু উৎসুক জনতা ও শ্রমিক এবং স্বজনরা রাস্তায় বিক্ষোভ করছেন। তারা একটি অ্যাম্বুলেন্স ও ইসলামী ব্যাংকের বুথ ভাঙচুর করছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।

উদ্ধার অভিযানের বিষয়ে ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো. ওসমান গনি বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না বিধায় ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট কাজ করে যাচ্ছে। তীব্রতা বেশি থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না। - ঢাকা পোস্ট

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়