শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৪ জুন, ২০২১, ০৪:৪৭ সকাল
আপডেট : ২৪ জুন, ২০২১, ০৪:৪৭ সকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

রাজপথে প্রাইভেট ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা ব্যক্তি নিরাপত্তা বিঘ্ন হবে: সামরিক বিশ্লেষক মইনুল ইসলাম

ইনকিলাব: রাজপথে প্রাইভেট ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসিয়েছে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। ক্যামেরাগুলো যুক্ত আছে পিপ দ্য প্লেস নামক একটি অ্যাপসে। এ অ্যাপসের সাহায্যে ঘরে বসেই দেখা যাবে ক্যামেরার আওতায় থাকা সড়কের তাৎক্ষণিক পরিস্থিতি। সাবস্ক্রিপশন ফি’র বিনিময়ে এসব ক্যামেরায় মিলবে লাইভ স্ট্রিমিং ও স্থির চিত্র। ঢাকার বাইরের কয়েকটি জেলায়ও বসানো হয়েছে ওই সব ক্যামেরা। তবে প্রতিষ্ঠানটির এ কার্যক্রমে অনুমোদন নেই ডিএমপি, দুই সিটি করপোরেশন কিংবা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের। শুধু সংশ্লিষ্ট থানার অনুমতি নিয়ে ক্যামেরাগুলো বসানো হয়েছে। এ ধরনের ক্যামেরা বসানোর কারণে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তথ্য অপরাধী চক্র বা অন্য কারো হাতে চলে যাওয়ার মাধ্যমে ব্যক্তি নিরাপত্তা বিঘ্ন হবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যেও দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিষ্ঠানটি সারা দেশে প্রাথমিকভাবে দুই শতাধিক ক্যামেরা বসিয়েছিল। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণ ও কারিগরী ত্রুটির কারণে বেশকিছু ক্যামেরা অচল হয়ে পড়ে। বর্তমানে ১০০ এর অধিক ক্যামেরা চালু রয়েছে।
ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম গতকাল বলেন, ডিএমপির রাস্তায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোর বিষয়টি আমার নজরে আসেনি। ডিএমপির অনুমতি না নিয়ে এ ধরনের কোনো ক্যামেরা বসানো হলে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জনবহুল রাজধানীর বাসা-বাড়ি এবং বিভিন্ন মার্কেটের নিরাপত্তায় ব্যক্তিগত উদ্যোগে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোকে আমরা উৎসাহ দিয়ে থাকি। কিন্তু রাজপথে এভাবে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোর বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সামরিক বিশ্লেষক ও বিজিবির সাবেক প্রধান লে. জেনারেল (অব.) মো. মইনুল ইসলাম গতকাল বলেন, রাষ্ট্রের প্রয়োজনে বিভিন্ন সরকারী সংস্থার পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা, অপরাধীদের শনাক্তকরণ যানজট নিয়ন্ত্রণে রাস্তায় ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়। এতে মানুষের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়তে হয় না। কিন্তু কোনো বেসরকারি প্রতিষ্ঠান রাজপথে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোর মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা ঝুঁকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ ধরনের কার্যক্রম প্রাইভেট কোম্পানির হাতে গেলে তা জননিরাপত্তা ছাড়াও প্রাইভেসির ঝুঁকি রয়েছে।
তিনি আরো বলেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তথ্য অপরাধী চক্র বা অন্য কারো হাতে চলে যাওয়ার মাধ্যমে ব্যক্তি নিরাপত্তা বিঘ্ন হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

পিপ দ্য প্লেসের উদ্যোক্তা যে সব রাস্তায় ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়েছে, সেগুলো হচ্ছেÑ ঢাকার মধ্যে প্রগতি সরণি, কুড়িল ফ্লাইওভার, খিলগাঁও, মোহাম্মদপুর শিয়া মসজিদ, টঙ্গী, বাংলামোটর, মিরপুর-১৪, মালিবাগ রেলগেট, আদাবর, ৩০০ ফিট রোড, মিরপুর-২, আবদুল্লাহপুর, মণিপুর স্কুল, সাত মসজিদ রোড, শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম, মিরপুর-১, আনসার ক্যাম্প, কল্যাণপুর বাসস্ট্যান্ড, কাজীপাড়া, টেকনিক্যাল, মেরুল বাড্ডা, অফিসার্স ক্লাব, কলেজ গেট, রাজমণি সিনেমা হল, শ্যামলী বাসস্টপ, পান্থপথ ক্রসিং, বেতার ভবন, মোহাম্মদপুর বাসস্টপ, কাজীপাড়া, পুরাতন রমনা থানা, ফার্মগেট, লালমাটিয়া, নবাবপুর রোড, ধানমন্ডি-২৭, বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টার, তোপখানা রোড, খিলক্ষেত, কৃষি মার্কেট, বাড্ডা লিংক রোড, মোহাম্মদপুর টাউন হল, শ্যামপুর, মিরপুর চিড়িয়াখানা, ৬০ ফিট রোড, স্কয়ার হাসপাতাল, শ্যামলী রিং রোড, এমইএস, জাপান গার্ডেন সিটি, মানিক মিয়া মোড়, মগবাজার ওয়্যারলেস, রাসেল স্কয়ার, মহাখালী, গুলিস্তান, বেইলী রোড, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড়, গাবতলী বাসস্টপ, সবুজবাগ, উত্তরা জসীম উদ্দীন, নিকুঞ্জ, মিরপুর সাড়ে ১১, শাহবাগ মোড়, মৎস্য ভবন মোড়, কমলাপুর, আসাদ গেট এলাকায় প্রতিষ্ঠানটির ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

এছাড়া ঢাকার বাইরে ভোগড়া বাইপাস, কাঁচপুর ব্রিজ, গাজীপুর চৌরাস্তা, বোর্ড বাজার, চিটাগাং রোড, গাজীপুরা বাসস্টপ, সাইনবোর্ড, চাষাঢ়া ও ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে কার্যক্রম পরিচালনা করছে পিপ দ্য প্লেস।
একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কোনো দুর্বৃত্ত যদি কারও ক্ষতি করার জন্য তাকে অনুসরণ করতে চায়, তবে সে সহজেই এই ক্যামেরার মাধ্যমে তার গতিবিধি অনুসরণ করতে পারবে। এছাড়া ভিনদেশি গোয়েন্দা সংস্থা এই ক্যামেরার সাহায্যে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের ওপর নজরদারিও করতে পারে। তাই অনুমোদনহীনভাবে সিসি ক্যামেরা বসানোর কার্যক্রম গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।
পিপ দ্য প্লেসের উদ্যোক্তা ইঞ্জিনিয়ার মোহছিয়ুল হক সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমানে যানজট একটি বড় সমস্যা। প্রযুক্তি ব্যবহার করে যানজট এড়ানো সম্ভব। এই অ্যাপসের মাধ্যমে মানুষ ঘরে বসেই রাস্তার তাৎক্ষণিক অবস্থা জানতে পারে।

প্রতিষ্ঠানটি আইনগত বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এটি একটি স্টার্ট-আপ প্রতিষ্ঠান। আমরা বছর দেড়েক আগে কার্যক্রম শুরু করেছি। যেহেতু পরীক্ষামূলকভাবে ক্যামেরাগুলো বসানো হয়েছে তাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে অনুমোদন নেয়া হয়নি। তবে সংশ্লিষ্ট থানা থেকে অনুমতি নেয়া হয়েছে। যেসব এলাকায় অনুমতি পাইনি সেসব এলাকায় আমরা ক্যামেরা লাগাইনি। অনেক থানা অনুমোদন দিলেও কিছু সীমাবদ্ধতার কারণে সেখানে ক্যামেরা বসানো হয়নি।

গুগল প্লে স্টোরের তথ্য অনুযায়ী, পিপ দ্য প্লেস অ্যাপটি এক লাখেরও বেশি মানুষ ডাউনলোড করেছেন। অ্যাপটি ব্যবহার করতে হলে ব্যবহারকারীকে প্রথমে তার ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। পরবর্তীতে তাকে সাবস্ক্রিপশন ফি দিয়ে সেবা নিতে হবে। প্রথম ১৬ বার বিনামূল্যে অ্যাপ থেকে সেবা নেয়া যাবে। পরবর্তীতে মাসিক ৩০ টাকা অথবা বাৎসরিক ৩০০ টাকা ফি দিয়ে সেবা অব্যাহত রাখা যাবে। এক হাজারের বেশি মানুষ অ্যাপটির ব্যাপারে তাদের রিভিউ দিয়েছেন। রেজিস্ট্রেশনে ব্যক্তিগত তথ্য চাওয়ায় অনেকে অ্যাপটি সম্পর্কে বিরূপ রিভিউ দিয়েছেন।

মতিঝিলের ব্যবসায়ী হাবিব আহমেদ গতকাল বলেন, এটির ভালোর চেয়ে খারাপ দিকই বেশি। কারো ব্যক্তিগত শত্রু থাকলে ওই ক্যামেরার মাধ্যমে সহজেই অবস্থান শনাক্ত করা সম্ভব হবে। এছাড়া অপরাধীরা যদি কাউকে টার্গেট করে, তবে ওই ব্যক্তি কোন রাস্তায় রয়েছে বা কোন রাস্তা দিয়ে যাচ্ছে তা শনাক্ত করে আক্রমণ করতে সক্ষম হবে। তবে এটি যদি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে থাকে, তবে এ ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের ক্ষতি না হয়ে বরং উপকার হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়