প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১] শুধু নাশকতা ও ভাংচুর নয় ওয়াজ মাহফিল, ফেসবুকে উস্কানিমূলক বক্তব্যের জেরে তিন শতাধিক ব্যক্তির খোঁজে র‍্যাব-পুলিশ

বিপ্লব বিশ্বাস: [২]রাজধানী ছাড়াও দেশের অন্যান্য স্থান থেকে যারা ফেসবুক, ইউটিউবে উষ্কানী ও বিদ্বেষমূলক বক্তব্য ছড়িয়েছেন তারাও রেহাই পাচ্ছে না। একে একে সবাইকেই আইনের আওতায় আনা হবে। শুধু নাশকতা বা ভাঙচুর নয়, ওয়াজের নামে উস্কানিদাতাদেরও তালিকা তৈরি হয়েছে।

[৩]পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তার হেফাজত নেতাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য ছাড়াও নানা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে চূড়ান্ত করা হয়েছে তিনশাতাধিক জনের তালিকা।

[৪]ডিএমপি কমিশমনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম জানান, পর্যায়ক্রমে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। ওয়াজ মাহফিলে উস্কানিমূলক বক্তব্য নিয়ে আলোচনা বা সমালোচনা চলছিল অনেকদিন ধরেই। সবশেষ স্বাধীনতার

[৫]সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ- নাশকতা ও তাণ্ডবে সরাসরি অংশ নেয়া ছাড়াও অনেকেই ঘটনার আগে ও পরে উস্কানি ছড়ায় তাদের বক্তব্যের মাধ্যমে।

[৬]হেফাজতের তাণ্ডবের ঘটনার ভিডিও ও ছবিসহ বিভিন্ন তথ্য বিশ্লেষণ করে ৩৫ জনের একটি তালিকা করে গ্রেপ্তার অভিযানে নামে পুলিশ। তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদে আরও অনেকের নাম জানতে পারে পুলিশ। সব মিলিয়ে এ সংখ্যা প্রায় আড়াইশ’ জনের।

[৬]জানান, ২৫০ জনের একটি তালিকা করা হয়েছে। এছাড়া আরও অনেকের বিরুদ্ধেই অনুসন্ধান চলতেছে। তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে প্রমাণ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তালিকার বেশিরভাগই হেফাজতের পাশাপাশি অন্য রাজনৈতিক দলের সাথেও জড়িত।

[৭]ওয়াজে কোন বক্তা কি ধরনের উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়েছে সেগুলোও বিশ্লেষণ করা হচ্ছে বলেও জানান ডিএমপি কমিশনার।

[৮]পুলিশ সদর দপ্তর বলছে, তদন্ত চলছে। যাদের সংশ্লিষ্টতা মিলবে সবাইকে গ্রেপ্তার করা হবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলার নেতাদের নাম রয়েছে। তবে, এর বড় একটি অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চট্টগ্রাম জেলার

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত