প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আলম রায়হান: ‘পিটুনি’ দেবার আগে ভাবতে হবে!

আলম রায়হান: শাজাহান সিরাজ করটিয়া কলেজ ছাএসংসদ নির্বাচনে ছাএলীগের প্যানেলে মনোনয়ন পাননি। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। এবং বিপুল ভোটে ভিপি নির্বাচিত হন। তিনি ছিলেন, সিরাজুল আলম খানের অনুসারী ।
কলেজ ছাত্র সংসদের অভিষেক অনুষ্ঠানের আগের দিন রাতে ঢাকা থেকে বডি বিল্ডার ওয়াসিমের নেতৃত্বে হোস্টেলে শাজাহান সিরাজকে বেদম মারধর করা হয়। সিনেমার নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠ ওয়াসিম তখন বডিবিল্ডার এবং আইয়ুব খানের এনএসএফ-এর পান্ডা ছিলেন।
শাজাহান সিরাজের উপর হামলার খবর সকালে এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে লোকজন লাঠি-সোঁটা নিয়ে করটিয়া কলেজ ঘেরাও করে। একপর্যায়ে ওয়াসিমসহ তাঁর সঙ্গীদের বেধরক মারপিট করে এলাকাবাসী। পুলিশ ওয়াসিমসহ এনএসএফ-এর পান্ডাদের আধমরা অবস্থায় কোনরকম উদ্ধার করে ঢাকায় পাঠিয়ে দেয়।
শাজাহান সিরাজের ভাষায়, ‘অভিষেক না হলেও ঐদিনেই আমি এলাকার জননেতা হয়ে যাই।’ এ ঘটনা শুনেছি শাজান সিরাজের মুখে। তিনি আমার নেতা ছিলেন।
রাজনীতি ও সিনেমার নায়ক, দুজনেই বর্তমানে মৃত। কিন্তু শিক্ষাটা জীবন্ত। কাজেই রাজনীতিতে অথবা ক্ষমতার দ্বন্দ্বে ‘পিটুনি’ দেবার আগে ভাবতে হবে। তা হোক, ঢাকায় ভিপি নূর, বরিশালে ডা. মনিষা, বা দিনমজুর-রিকসা চালক অথবা অন্যকেউ…..

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত