প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকার দরিদ্ররা খেতে না পেয়ে ভারতে প্রবেশ করছে: অমিত শাহ

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [৩] আনন্দবাজার ডিজিটালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলাদেশ থেকে ‘অনুপ্রবেশ’ পুরোপুরি বন্ধ করা হবে। অমিতের দাবি, বাংলাদেশিরা পশ্চিমবাংলা ছাপিয়ে কাজের সন্ধানে যুদ্ধবিদ্ধস্ত ও প্রায় ঘেরাটোপে থাকা জম্মু-কাশ্মীরেও চলে যাচ্ছে।

[৪] অনুপ্রবেশ সমস্যাকে প্রাশাসনিক সমস্যা বলে মনে করেন বিজেপির সাবেক এই সভাপতি। তিনি মনে করেন গত ৫ দশক পশ্চিমবঙ্গকে ৩টি দল শাসন করলেও তারা প্রাশাসনিকভাবে এই সমস্যা মোকাবেলার চেষ্টা করেনি। বিজেপি ক্ষমতায় এলে অবশ্যই তা করা হবে।

[৫] তিনি আরও বলেন, ‘অনেক মানুষ শরণার্থী হয়ে এসে পশ্চিমবঙ্গে বেআইনি ভাবে বসবাস করছেন। আমরা এখানে ক্ষমতায় এসে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের মাধ্যমে তাদের সম্মানজনক ভাবে বাঁচার অধিকার দেব। এর ফলে পশ্চিমবঙ্গের জীবনযাত্রারও অনেক পরিবর্তন হবে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও ভাল হবে বলে আমি মনে করি। দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন চালাব। সবচেয়ে বড় কথা, অনুপ্রবেশকে এত কঠোর হাতে নিয়ন্ত্রণ করব যে, পরিষ্কার বার্তা যাবে, পশ্চিমবঙ্গে এখন অনুপ্রবেশ করা সহজ নয়।’

[৬] গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ-সিপিডি’র সম্মানীয় ফেলো ড. মুস্তাফিজুর রহমান মনে করেন অমিত শাহ একটি রাজনৈতিক বক্তব্য। যদি বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের প্রান্তিক মানুষদের অর্থনৈতিক অবস্থা, সেবার প্রাপ্যতা ইত্যাদি বিবেচনা করলে এই বক্তব্যের কোনও সত্যতাই মেলে না।

[৭] বাংলাদেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠী ভারতের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর তুলনায় সুযোগসুবিধা বেশি পায়, কম নয়। সীমান্তবর্তী মানুষ অপর সীমান্তের মানুষের জীবনযাত্রা দেখে অভ্যস্ত। সেটি দেখে তাদের সীমান্ত পাড়ি দেওয়ার অনুপ্রেরণা পাওয়ার কোনও কথা নয়।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত