প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] যমুনা ও পদ্মায় কালবৈশাখীর কবলে লঞ্চ, ৯৯৯ এ ফোন কলে ৫ শতাধিক যাত্রী উদ্ধার

সুজন কৈরী: [২] দেশের বিভিন্ন জায়গার উপর দিয়ে রোববার সন্ধ্যার পর বয়ে যায় প্রবল কালবৈশাখী ঝড়। এতে দেশের বিভিন্ন স্থানে গাছপালা উপরে পড়ে। হতাহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। ঘটেছে নৌ দুর্ঘটনাও। রোববার সন্ধ্যার পর থেকেই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জাতীয় জরুরী সেবা নম্বর ৯৯৯ এ একের পর এক নৌ দুর্ঘটনার খবর জানিয়ে অসহায় বিপদগ্রস্থ নৌ যাত্রীরা সহায়তা চেয়ে ফোন করা শুরু করেন। এর মধ্যে প্রমত্তা পদ্মা ও যমুনা নদীতে প্রায় একই সময়ে দুটি নৌ দুর্ঘটনা ঘটে। ৯৯৯এর মাধ্যমে খবর পেয়ে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যেও ঝুঁকি নিয়ে নৌপথে যাত্রা করা নারী শিশুসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক যাত্রীকে নিরাপদে উদ্ধার করে নৌ পুলিশ।

[৩] সোমবার ৯৯৯ এর মিডিয়া কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার বলেন, রোববার রাত পৌণে ৮টায় ৯৯৯ নম্বরে দুটি নৌ দুর্ঘটনায় উদ্ধার সহায়তা চেয়ে দুজন কলার ফোন করেন। এর মধ্যে একটি ফোন করেন আব্দুল্লাহ নামের একজন লঞ্চ যাত্রী। তিনি জানান, তারা নারী ও শিশুসহ প্রায় ২০০ যাত্রী ছোট একটি দ্বিতল লঞ্চযোগে কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকে মাওয়া ঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন। কিছুদূর যাওয়ার পর তারা ঝড়ের কবলে পড়েন। প্রচন্ড ঝড়ো হাওয়া, তীব্র স্রোত ও ঢেউয়ে তাদের লঞ্চটি একপাশে হেলে যায় এবং লঞ্চে পানি উঠতে শুরু করে। তখন তাদের লঞ্চটি নিকটবর্তী একটি চরে ভেড়ানো হয় এবং যাত্রীদের নামিয়ে দেওয়া হয়। এরপর কালবৈশাখী ঝড়ের মধ্যে চরে খোলা আকাশের নীচে নারী শিশুসহ যাত্রীরা অবর্ণনীয় দুর্ভোগ ও ভীতিকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়েন।

[৪] ৯৯৯ থেকে খবর পেয়ে মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির একটি দল একটি উদ্ধারকারী লঞ্চ নিয়ে রওনা দেয়। কিন্তু প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়ায় উদ্ধারকারী দলটিকেও বেশ ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতিতে পড়তে হয়।

[৫] মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক সিরাজুল কবীর ৯৯৯ কে জানান, প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যেও তাদের উদ্ধারকারী দলটি নিরাপদে নারী ও শিশুসহ প্রায় ২০০ যাত্রীকে পদ্মা নদীর চর থেকে উদ্ধার করে মাওয়া ঘাটে পৌঁছে দিয়েছে।

[৬] এছাড়া ফারদিন নামের অপর একটি লঞ্চের যাত্রী ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে জানান, তিনি একটি ছোট লঞ্চে করে আরিচা থেকে পাবনার কাজীরহাট যাচ্ছিলেন। পথে তারাও ঝড়ের কবলে পড়েন। এরপর প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়া, তীব্র স্রোত ও ঢেউয়ে তাদের লঞ্চটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যমুনা নদীর মোল্লারচরে আটকা পড়ে। তিনি জানান লঞ্চে নারী শিশুসহ প্রায় তিন শতাধিক যাত্রী রয়েছেন।

[৭] ৯৯৯ তাৎক্ষণিক পাবনার নগরবাড়ী নৌ পুলিশ ফাঁড়িকে ঘটনা জানিয়ে দ্রুত উদ্ধারের ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানায়।

[৮] পরে নগরবাড়ী নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরির্দশক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ৯৯৯ কে জানান, প্রতিকূল আবহাওয়ায় উদ্ধারকারী দলের রওনা দিতে কিছুটা বিলম্ব হলেও ঝুঁকি নিয়ে একটি উদ্ধারকারী লঞ্চ ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং মোল্লারচর থেকে নারী ও শিশুসহ প্রায় তিন শতাধিক যাত্রীকে নিরাপদে উদ্ধার করে পাবনার কাজীরহাটে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত