প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]প্রায় একইসঙ্গে টিকা দেওয়া শুরু করেছে, এমন দেশগুলোর মধ্যে প্রদানের সংখ্যায় বাংলাদেশ ১ নম্বরে

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২]পশ্চিমা দেশগুলোর পরে কার্যক্রম শুরু করেও সবাইকে অবাক করে দিয়েছে বাংলাদেশ।

[৩] বিশ্বের অন্যতম সেরা চিকৎসা ব্যবস্থা রয়েছে জাপানে। তবে গণটিকাদানের ক্ষেত্রে দেশটি ধুঁকছে। এখনও ঠিকমতো শুরুই করতে পারেনি। সিরিঞ্জ সঙ্কটের মতো সামান্য সমস্যারই সমাধান করতে পারছে না তারা।

[৪] জাতিসংঘ গত সপ্তাহে জানিয়েছে, বিশ্বের অধিকাংশ টিকা দখল করে ফেলেছে উন্নত দেশগুলো। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মতো কিছু দেশ, প্রয়োজনের ৪ থেকে ৮ গুন টিকা কিনে রেখেছে। আর পাকিস্তানের মতো কিছু দেশ হন্যে হয়েও প্রয়োজনের ৫ শতাংশ টিকাও জোগাড় করতে পারছে না। তবে নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশ হয়েও নিজেদের চেয়ে ধনী অনেক দেশের চাইতে দক্ষতার সঙ্গে টিকা জোগাড় করেছে বাংলাদেশ। তাই এখন পর্যন্ত সরবরাহে কোনও সঙ্কট হয়নি।

[৫] এদিকে হংকং পড়েছে আরও অদ্ভূত সমস্যায়। তারা চীন থেকে সিনোভ্যাকের ভ্যাকসিন কেনার জন্য চুক্তিবদ্ধ হতে চেয়েছিলো। কিন্তু অধিকাংশ নাগরিক সেটির উপর আস্থা রাখতে পারেনি। ফলে তারা ফাইজার কিংবা অ্যাস্ট্রাজেনেকা থেকে ডোজ জোগাড়ের চেষ্টা করে। কিন্তু এটিতে সফলতা আসেনি। ফলে এখন তারা বড় পরিসরে টিকা কার্যক্রম শুরুই করতে পারেনি।

[৬] জনংসংখ্যার ১.৫ শতাংশকে টিকা দিয়েছে বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত টিকা পেয়েছেন ২৮ লাখ ৫০ হাজার ৯৪০ জন। ভারত বাংলাদেশের প্রায় ২০ দিন আগে গণটিকা কার্যক্রম শুরু করে জনসংখ্যার মাত্র ০.৯ শতাংশকে টিকা দিয়েছে। শ্রীলঙ্কার অবস্থানও একই। পাকিস্তান দিতে পেরেছে মাত্র ০.৩৬ শতাংশকে। আর মিয়ানমার দিয়েছে ০.২ শতাংশকে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে মালদ্বীপ। তারা জনসংখ্যার ২৪ শতাংশকে টিকা দিয়েছে। তবে দেশটির জনসংখ্যাই মাত্র ৫ লাখ ৩০ হাজার।

[৭] ৭ ফ্রেব্রুয়ারি করোনার টিকাদান শুরু করে বাংলাদেশ। সব মিলিয়ে পার হয়েছে ১৯ দিন। সর্বোচ্চ ৩০ দিন পর্যন্ত টিকাদান করেছে এমন কোনও দেশই বাংলাদেশের চেয়ে বেশি টিকা দিতে পারেনি। সেই অর্থে স্বল্প সময়ে টিকাদানের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পেছনে কিন্তু কাছাকাছি আছে শুধু মরোক্কো। তাদের গণটিকা কার্যক্রম শুরুর ২৯ দিন পার হয়েছে বৃহস্পতিবার। সম্পাদনা : মোহাম্মদ রকিব

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত