প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] স্থানীয়রা মনে করেন গোপন নিউক্লিয়ার ডিভাইসের কারণেই ভারতের হিমালয়ে বন্যা হয়েছে

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] বিজ্ঞানীরা মনে করেন, দূর্ঘটনার কারণ ভেঙে পড়া হিমবাহ, পারমাণবিক অস্ত্রের ধারণা স্নায়ুযুদ্ধের হ্যাঙওভার।

[৩] ভারতয়ি হিমালয়ের একটি গ্রামে, কয়েক প্রজন্মের বাসিন্দারা বিশ্বাস করে এসেছেন, তুষার এবং পাথরের মাঝে একটি পারমাণবিক যন্ত্র লুকানো আছে। ফেব্রুয়ারির শুরুতে হিমবাহ ভাঙা বরফ থেকে সৃশ্ট বড় বন্যা যখন রাইনি গ্রামকে আঘাত করে, গ্রামবাসীরা বিশ্বাস করতে শুরু করেন, ডিভাইসি ফেটে গেছে। এই বন্যায় ৫০ এর বেশে মানুষ মারা গেছেন। বিবিসি

[৪] রাইনি গ্রামের প্রধান সংগ্রাম সিং রাওয়াত বলেন, ‘আমরা মনে করি, এই ঘটনায় লুকানো ডিভাইসটির ভুমিকা আছে। শীতকালে কিভাবে হিমবাহ ভাঙে? সরকারের উচিৎ তন্দ করে ফেটে যাওয়া ডিভাইসটি খুঁজে বের করা।’

[৫] এই এলাকায় ছড়িয়ে পড়া গুজব হলো উঁচু এলাকায় বিশ্ব সেরা পর্বতারোহীরা এসপানিওয়াজের সঙ্গে যুক্ত। তারা ইলেক্ট্রনিক স্পাই সিস্টেমের অংশ হিসেবে তেজস্ক্রিয় বস্তু রোপন করে গেছেন। এই গুজবের জন্ম হয় ১৯৬০ সালে। সেসময় বলা হচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত চীনের পরমাণু ও মিসাইল পরীক্ষার জন্য পুরো হিমালয় জুড়ে নিউক্লিয়ার স্পাই ডিভাইস স্থাপন করে রেখেছে।

[৬] যুক্তরাষ্ট্রের রক অ্যান্ড আইস ম্যাগাজিনের কনট্রিবিউটিং এডিটর পেটে তাকেদা বলেন, ‘এটি স্নায়ু যুদ্ধে প্যারানয়াভ এই ধরণের বহু গল্প এখনও প্রচলিত আছে।’ তবে ইতিহাসবীদরা বলেন, গ্রামবাসীরা খুব বেশি ভুল নন। এই ধরণের ঘটনা আসলেই ঘটেছিলো। ১৯৬৫ সালে ৭টি প্লুটোনিয়াম ক্যাপসুল নিয়ে ভারত-যুক্তরাষ্ট্রের একটি যৌথদল নান্দাদেবীতে আরোহনের চেষ্টা করে। তাদের কাছে ৫৭ কেজি সার্ভিল্যন্স উপকরণ ছিলো। তারা চুড়ায় উঠতে পারেননি। ৭ হাজার ৮১৬ মিটার উঁচুতে একটি প্ল্যাটপর্মের উপর রেখে আসেন। মজার বিষয় হলো সর্বশেষ হিমবাহটি ভেঙে পড়েছে নান্দাদেবী থেকেই।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত