প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডেমরায় ডাইং কারখানায় শ্রমিকের রহস্যজনক মৃত্যু

মো.বশির উদ্দিন: রাজধানীর ডেমরায় মো. শুক্কুর আলী (৪৫) নামে একজন প্রিন্টিং শ্রমিকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রোববার সন্ধ্যায় মৃতের ছোট ভাই সুমন ডেমরা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে বলে জানিয়েছেন ডেমরা থানার এসআই মো. আশরাফ।

এদিকে রোববার সকাল পৌনে ৯ টার দিকে বামৈল এলকার ডেমরা ডাইং নামের প্রিন্টিং কারখানার ৪ তলার ছাদ থেকে পড়ে শুক্কুর আলীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কারখানা কর্তৃপক্ষ। ওই দিনই কারখানা কর্তৃপক্ষ শুক্কুর আলীকে স্থানীয় রেনোভা ক্লিনিকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। এ সময় কর্তব্যরত ডাক্তার শুক্কুর আলীকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে খবর পেয়ে ডেমরা থানা পুলিশ ওই ক্লিনিক থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য রোববার শেষ বিকালে ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। শুক্কুর আলী চাঁদপুরের কচুয়া থানার লক্ষীপুর গ্রামের মমতাজ উদ্দিনের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত ২০ থেকে ২২ বছর ধরে শুক্কুর আলী ডেমরা ডাইংয়ে প্রিন্টিংয়ের কাজ করছেন। তিনি এ কারখানার দ্বিতীয় তলায় কাজ করেন। কিন্তু ৪ তলার ছাদ থেকে পড়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলা হচ্ছে। আরও জানা যায়, সকালে শুক্কুর আলী পেটে ব্যাথা ও বমি বমি ভাব হচ্ছিল বলে সে চারতলায় টয়লেটে যায় এবং ছাদেই বমি করা শুরু করে। এক পর্যায়ে মাথা ঘুড়ে ছাদ থেকে সে নিচে পড়ে যায়। এতে তার মাথার পেছন দিকে থেতলে গিয়ে গালে ও কপালে ধারালো কিছুর আঘাতের মতো ক্ষত হয়। কিন্তু ওই কারখানায় ২য় তলায় শুক্কুর আলীর কর্মস্থলেও টয়লেট ছিল। আর ছাদেও রেলিং ও সানসেট থাকায় বমি হলেও নিচে পড়ার কোন সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন কর্মরত অন্যান্য শ্রমিকেরা। আর ছাদ থেকে পড়লেও শরীরের অন্যান্য জায়গায় ক্ষত বা আঘাতের চিহ্ন থাকতো। এর আগেও এ কারখানায় কয়েকটি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আর এ ঘটনাকেও ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

কারখানার ম্যানেজার মাহমুদুল হাসান মান্নান বলেন, আমাকে ফোন করার পর কারখানায় এসে দেখি শুক্কুর আলীর লাশ ছাদের নিচে পড়ে আছে। কিভাবে পড়েছে তা আমি দেখিনি,কিন্তু শ্রমিকদের কাছে শুনেছি শুক্কুর আলী ছাদ থেকে পড়ে গেছে।

এ বিষয়ে ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসির উদ্দিন বলেন, খবর পাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করেছে। এক্ষেত্রে শুক্কুর আলীর বমির সঙ্গে যদি ব্রেইন স্ট্রোক হয়ে থাকে তাহলে ছাদ থেকে পড়তেও পারে। তবে ময়না তদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে এ মৃত্যুর আসল রহস্য বের হয়ে যাবে। এ বিষয়ে মৃতের ভাই অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন। আর মামলার সুষ্ঠ তদন্তের ভিত্তিতে শুক্কুর আলীর মৃত্যুর আসল ঘটনা জেনে সে অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। সম্পাদনা: আখিরুজ্জামান সোহান

সর্বাধিক পঠিত