প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাংলাদেশে বেড়েছে দুর্নীতি, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের র‌্যাংকিংয়ে ২ ধাপ পিছিয়ে ১২ নম্বরে

আসিফুজ্জামান পৃথিল, আব্দুল্লাহ মামুন: [২]২৬ পয়েন্ট স্কোর নিয়ে যৌথভাবে ১৪৬ নম্বরে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। তবে ২০১২ সালের পর বাংলাদেশের স্কোরে কোনও পরিবর্তন আসেনি। অন্য দেশে দুর্নীতি কমায় বাংলাদেশের র‌্যাংকিংয়ে অবনতি হয়েছে।

[৩]দুর্নীতি ধারণা সূচকটি (সিপিআই) বলছে, পুরো এশিয়া-প্যাসেফিক অঞ্চলকেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে বড় ধরণের লড়াই করতে হচ্ছে। দুর্নীতির কারণেই কোভিড-১৯ অতিমহামরী মোকাবেলায় অনেক দেশকে বেগ পেতে হচ্ছে।

[৪]১০০ এর মধ্যে ৪৩ স্কোরকে গড় স্কোর হিসেবে বিবেচনায় সিপিআই ২০২০ অনুযায়ী বাংলাদেশের স্কোর ২৬। এছাড়া সর্বোচ্চ থেকে গণনা অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৬তম। এই অবস্থানে রয়েছে যৌথভাবে ৩ দেশ।

[৫]এই স্কোর অনুযায়ী বাংলাদেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা এখনো উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। তিনি জানান, এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের ৩১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ চতুর্থ সর্বনিম্ন অবস্থানে এবং দক্ষিণ এশিয়ার ৮টি দেশের মধ্যে একমাত্র আফগানিস্তানই বাংলাদেশের চেয়ে বেশি দুর্নীতিগ্রস্ত।

[৬]সূচক অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ ভুটান, দেশটির স্কোর ৬৮। ১৮০টি দেশের মধ্যে তালিকার ওপর থেকে এই দেশটির অবস্থান ২৪তম। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত। দেশটির স্কোর ৪০। তালিকার ওপর থেকে দেশটির অবস্থান ৮৬তম। ২০১৯ সালের তুলনায় ভারতের অবস্থান ৬ ধাপ এগিয়েছে। অন্যদিকে, বাংলাদেশের ঠিক আগেই পাকিস্তানের অবস্থান।

[৭]এবারের তালিকা অনুযায়ী দুই তৃতীয়াংশ দেশের স্কোর ৫০ এর নীচে। সিপিআই ২০১৯ এর তুলনায় ৪৮টি দেশের স্কোর কমেছে। অপরিবর্তিত আছে ৭০টি দেশের স্কোর এবং ৬২টি দেশের স্কোর বেড়েছে।

[৮]সূচক অনুযায়ী বিশ্বে সর্বনিম্ন দুর্নীতি হয় নিউজিল্যান্ড ও ডেনমার্কে। আর সবচেয়ে বেশি দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ দক্ষিণ সুদান ও সোমালিয়া।

[৮] সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক আফসান চৌধুরী বলেন, আমাদের একটি গবেষণায় উঠে এসেছে দুর্নীতি শুধু খারাপ মানুষ করে এটি আর কেউ ভাবে না। গবেষণায় ৮৯ শতাংশ মানুষ বলেন, যেকোনো কাজে গিয়ে তাদের ঘুষ দিতে হয়েছে, বাকি ১১ শতাংশ মানুষকে দ্বিতীয় বার গিয়ে জিজ্ঞাসা করলে বলেন, এটি দুর্নীতি সেটি তারা মনে করেন না।

[৯] দুর্নীতি সমাজে গ্রহণযোগ্য এবং কাঠামোগত ভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। মানুষ মনে করে যেকোনো ভাবে আয় করলেই হলো। অর্থাৎ আয়ই প্রধান বিষয়। সমাজের মূল বিষয় অর্থবান হওয়া কিন্তু কীভাবে অর্থবান হচ্ছে কেউ প্রশ্ন করে না।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত