প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পেঁপের নতুন জাত উদ্ভাবন করেছেন বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা 

মো. মিলটন খন্দকার: [২] গাজীপুরের সালনায় অবস্থিত কৃষি গবেষণায় ও উচ্চ শিক্ষায় বিশেষায়িত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগ সুস্বাদু ফল ও সবজি পেঁপের উচ্চ ফলনশীল দেশীয় জাত উদ্ভাবন করেছে।

[৩] উক্ত বিভাগের অধ্যাপক মরহুম ড. এম এ খালেক মিয়া ও অধ্যাপক ড. নাসরীন আক্তার আইভীর নেতৃত্বে টানা পাঁচ বছর গবেষণা চালিয়ে উচ্চ ফলনশীল সুস্বাদু পেঁপের দেশীয় এ জাতটি উদ্ভাবন করা হয়। জাতীয় বীজবোর্ড কর্তৃক ২০১৩ সালে ‘বিইউ পেঁপে-১’ নামে এটি নিবন্ধিত হয়েছে।

[৪] শনিবার (১৭ অষ্টোবর) সকালে বঙ্গবন্ধু কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে উক্ত জাতের পেঁপের ফলন ও বাজারজাতকরণ প্রতিষ্ঠান সুপীম সীড কোম্পানীর ভালুকা উপজেলার চাঁনপুর-সোনাখালী গ্রামের প্রদর্শনী মাঠে সরেজমিনে যাওয়া সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ তথ্য জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. গিয়াসউদ্দিন মিয়া।

[৫] এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর তোফায়েল আহাম্মদ, পরিচালক (গবেষণা) অধ্যাপক ড. আমিনুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. নাসরীন আক্তার আইভি, অধ্যাপক ড. মো. আজিজুল ইসলাম, সুপ্রীম সীড কোম্পানীর আফজাল হোসেন প্রমুখ।

[৬] ব্রিফিংকালে উপাচার্য আরো জানান দেশীয় পেঁপের কৌলিসম্পদ ব্যবহার করে নতুন জাত উদ্ভাবনের কাজ শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগ। দেশীয় পেঁপের পরপরাগায়িত বীজ থেকে চারা উৎপাদন করে প্রজনন বা জেনেটিক পিওরিফিকেশনের মাধ্যমে গাইনোডাইওসিয়াস ধরনের কয়েকটি উন্নত লাইন বাছাই করা হয় এবং বাছাইকৃত লাইনগুলো থেকে শতভাগ ফলবান পেঁপের এ জাতটি উদ্ভাবন করা হয়েছে।

[৭] পরবর্তীতে উক্ত জাতটির গুণগতমান ঠিক রেখে বৈজ্ঞানিক প্রদ্ধতিতে পিওরিফিকেশন করে বীজ উৎপাদনের জন্য সুপ্রীম সীড কোম্পানীর সঙ্গে যৌথভাবে কাজ শুরু করা হয়। তাদের মাধ্যমে গুণগতমান অক্ষুন্ন রেখে বীজ উৎপদন করে কৃষক পর্যায়ে চাষাবাদের জন্য দেয়া হয়। সুপ্রীম সীড কোম্পানী প্রায় সাত বছর সফলতার সঙ্গে এ দায়িত্ব পালন করে আসছে। ফলে ‘বিইউ পেঁপে-১’ জাতটি বাণিজ্যিকভাবে চাষাবাদের ব্যাপারে কৃষক পর্যায়ে ব্যাপক সাড়া পেয়েছে। সম্পাদনা: সাদেক আলী

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত