প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মসজিদে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত সব পরিবারের দায় সরকারের: নিপুণ রায় চৌধুরী

ডেস্ক রিপোর্ট : নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহত ও আহত মুসল্লিদের প্রত্যেক পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে ৫০ লাখ টাকা করে অনুদানের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এবং নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী। তিনি জানান, ক্ষতিগ্রস্ত এসব পরিবারের দায়ভার সরকারকে নিতে হবে।

মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ২০টি পারিবারের মধ্যে আর্থিক অনুদান ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন বিএনপির কেন্দ্রীয় এ নেত্রী।

এ সময় তার সঙ্গে বিএনপির যুব বিষয়ক সহ-সম্পাদক নেওয়াজ আলী, সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম বদরুজ্জামান খান খসরুর ছেলে বিএনপি নেতা মাহমুদুর রহমান সুমন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতুল্লাহ, বিলকিস ইসলাম, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও যুবদল নেতা খন্দকার খোরশেদ আলমসহ স্থানীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

নিপুণ রায় বলেন, জনগণের পক্ষ থেকে আমাদের দাবি, যারা নিহত হয়েছেন, যারা আহত হয়েছেন, তাদের প্রত্যেক পরিবারকে সরকার থেকে ৫০ লাখ টাকা করে অনুদান দিতে হবে। যদি এটা না করা হয়, সে ক্ষেত্রে এই জনগণকে নিয়েই, নারায়ণগঞ্জবাসীকে নিয়েই প্রয়োজনে আমরা রাজপথে নামবো।

নিপুণ রায় বলেন, আমরা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে আপনাদের সমবেদনা জানাতে এসেছি। তাদের পক্ষ থেকে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছি। এ বিস্ফোরণে পরিবারগুলোর যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ হবার নয়। তারপরও আমরা আর্থিকভাবে কিছু সহায়তা করার চেষ্টা করেছি মাত্র। আমরা আশ্বাস দিচ্ছি, বিএনপি আপনাদের সুখে-দুঃখে পাশে আছে ও থাকবে। আমরা দোয়া করি, যেন এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে পারেন।

তিনি বলেন, আমরা স্বজনহারা ক্ষতিগ্রস্ত পারিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা এতোটাই শোকাহত যে এখন তাদের চোখ দিয়ে পানিও বের হয় না। এখন শুধু তাদের বুকে চাপাকান্না। আমরা দাবি করছি, যেসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের গাফিলতিতে এতো বড় দুর্ঘটনা ঘটলো অবিলম্বে তাদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

সরকারের অবহেলায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে দাবি করে নিপুণ রায় চৌধুরী বলেন, গ্যাস লিকেজ ও বিদ্যুতের ক্ষেত্রে যে অবহেলা, আমি বলব, এখানে সরকারের গাফিলতি আছে, যার কারণে সরকার থেকে বারবার করে বলা হচ্ছে, এই মসজিদ বেআইনিভাবে স্থাপন করা হয়েছে। একটি বেআইনি স্থাপনা এত দিন ধরে এখানে কীভাবে প্রতিষ্ঠিত হলো এবং কীভাবে কার কার উদ্যোগে, কাকে সন্তুষ্ট করে আজ বেআইনি স্থাপনা প্রতিষ্ঠিত হলো, সেটাও কিন্তু এখন তদন্তের ব্যাপার আছে।

গত শুক্রবার রাতে এশা নামাজের সময় নারায়ণগঞ্জের তল্লা এলাকায় মসজিদে বিস্ফোরণে ২৭ জনের মৃত্যু ও বহু মুসল্লি বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়েছেন।

পূর্বপশ্চিমবিডি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত