প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আফগানিস্তানে আকস্মিক বন্যায় মৃত বেড়ে ১০০

ডেস্ক রিপোর্ট : আফগানিস্তানে পারওয়ান প্রদেশে আকস্মিক বন্যায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০০ জনে দাঁড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে কর্তৃপক্ষ জানায়। বিবিসি জানায়, প্রবল বৃষ্টিতে বুধবার ভোরে রাজধানী কাবুল থেকে উত্তরে প্রদেশটিতে আকস্মিক এ বন্যা সৃষ্টি হয়। এ সময় মানুষ ঘুমিয়ে ছিল।

দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে,বন্যায় প্রদেশের রাজধানী শহরে চারিকরের বড় অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ধ্বংস্তূপে পরিণত হয়েছে ৫০০টিরও বেশি বাড়িঘর। মাটির নিচে চাপা পড়ে আছে অনেক মানুষ। তাদেরকে উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত আছে। উদ্ধারকর্মীরা মৃতদের সংখ্যা প্রকাশ করছে। এতে দেখা গেছে, এখন পর্যন্ত ১০০ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়েছে। আহত ১০০ ছাড়িয়ে গেছে। পারওয়ান কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

ঘটনার ভয়াবহতা প্রসঙ্গে প্রদেশটির গভর্নর ফাজলুদ্দিন আয়ার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, অন্তত কয়েকশ মানুষের মৃতের হতে থাকত পারত।প্রাদেশিক ওয়াহিদা শাকার জানান, হতাহতের মধ্যে শিশুও রয়েছে। এখনও অনেক মানুষ তাদের স্বজনদের নিখোঁজ থাকার কথা স্থানীয় সাংবাদিকদের জানাচ্ছেন। বিভিন্ন জায়গায় মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়ে যাওয়া স্বজনদের উদ্ধারে ব্যস্ত দেখা গেছে।

শাহরাক-মালিমিন গ্রামের বাসিন্দা আহমাদ জান বলেন, এখনো অনেক মানুষ ঘরবাড়ির নিচে চাপা পড়েছে। ভোরে আকস্মিক বন্যায় সবকিছু ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। এ সময় মানুষ ঘুমিয়েছিল। উদ্ধারকর্মীরা মৃতদেহ বের করে আনছে। মোহামেদ কাসিম নামে এক কৃষক বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানান, তার পরিবারের ১১ জন সদস্য মারা গেছে।

আকস্মিক বন্যায় অনেক পরিবার একাধিক বা ততোধিক সদস্য হারিয়েছে। জীবিতরা ঘরবাড়ি হারিয়ে মানবেতর জীবন করছে। আশ্রয়, খাদ্য ও পানি সংকটে পড়েছেন তারা।শাহরাক-মালিমিন গ্রামের বাসিন্দা আহমাদ জান বলেন, এখনো অনেক মানুষ ঘরবাড়ির নিচে চাপা পড়েছে। ভোরে আকস্মিক বন্যায় সবকিছু ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। এ সময় মানুষ ঘুমিয়েছিল। উদ্ধারকর্মীরা মৃতদেহ বের করে আনছে।

তবে হতাহতের সহায়তা, চিকিৎসা ও উদ্ধার কার্যক্রম সামর্থ্য নয় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ, এ জন্য অতিসত্ত্বর কেন্দ্রীয় সরকারের সহায়তা চান পারওয়ান মুখপাত্র। আফগানিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আশরাফ ঘানি পারওয়ানে জরুরি সহায়তা পৌঁছানোর নির্দেশ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোকে। তিনি মৃতদের প্রতি শোক জানান।

টানা বর্ষণ ও আকস্মিক বন্যার ফলে প্রতি বছর আফগানিস্তানে অনেক মানুষের মৃত্যু হয়ে থাকে। ভেঙে পড়ে দুর্বল ভেতরে ওপর গড়া ঘরবাড়ি। চলতি মাসের শুরুর দিকে আফগানিস্তানে পূর্বাঞ্চলের নানগারহর প্রদেশে একটি গ্রামে আকস্মিক বন্যায় ১৫ শিশুসহ ১৬ জনের মৃত্যু হয়। ধসে পড়ে অনেক বাসস্থান।

সূত্র : দেশ রূপান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত