প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দাবানলে পুড়ছে ক্যালিফোর্নিয়া, অষ্ট্রেলিয়া ও কানাডার কাছে সহায়তা চেয়েছেন গভর্নর

লিহান লিমা: [২] বৃহস্পতিবার থেকে উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ায় বজ্রপাত থেকে সৃষ্ট দাবানলে পুড়েছে হাজারো একর জমি, বসতি ছেড়েছেন লাখো বাসিন্দা। রাজ্যে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। প্রায় ১২ হাজার দমকমল কর্মী হেলিকপ্টার ও এয়ার ট্যাঙ্কার নিয়ে দাবানল নিয়ন্ত্রণে ২৪ঘণ্টা কাজ করে যাচ্ছেন। এএফপি

[৩] ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউসম দাবানল মোকাবেলায় অষ্ট্রেলিয়া ও কানাডার সাহায্য চেয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে এটাকে ‘জাতীয় দুর্যোগ’ ঘোষণা করার অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দাবানলের তীব্রতা আমাদের বাহিনী ও সরঞ্জামের ওপর চাপ সৃষ্টি করছে। নতুন করে কোথাও ইউনিট পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। অরেগন, নিউ মেক্সিকো, টেক্সাসসহ অন্যান্য অঙ্গরাজ্য দমকল কর্মী ও ফায়ার ইঞ্জিন পাঠানোর কথা জানিয়েছে। সিএনএন

[৪] ইতোমধ্যেই ৯ লাখ ১৫ হাজার একরের বেশি এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে আগুন। গত তিন দিনে ছেটো-বড় ১২ হাজারের বেশি বজ্রপাতে সৃষ্ট ৫৬০টি ছোট-বড় আগুনে নিয়ন্ত্রণে ৫০০টির বেশি ঘরবাড়ি পুড়ে গেছে। ৫জন নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন ৪৩জন দমকল কর্মী। এক লাখ ৭৫ হাজার বাসিন্দাকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। আরও ১ লাখ বাসিন্দাকে সরিয়ে নেয়ার কাজ চলছে। [৫] আবহাওয়াবিদরা বলছেন, প্রচণ্ড বাতাস, তীব্র তাপদাহ এবং বাতাসে আর্দ্রতা অস্বাভাবিক হারে কমে যাওয়ায় আগুণ নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। গত কয়েক দিনে ক্যালিফোর্নিয়ায় পৃৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা (১৩০ ডিগ্রী বা প্রায় ৫৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসের সমান) রেকর্ড করা হয়েছে।

[৬] কোভিড-১৯ এর সঙ্গেই দাবানলের এই দুর্যোগে প্রায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দারা। রাজ্যটিতে ৬ লাখের বেশি কোভিড রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ পরিস্থিতিতে অনেক বাসিন্দাই আশ্রয় কেন্দ্রে যেতে চাচ্ছেন না। সম্পাদনা: ইকবাল খান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত