প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রাজবাড়ীতে টিআর প্রকল্পের কাজ না করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

মো.ইউসুফ মিয়া, রাজবাড়ী প্রতিনিধি : [২] জেলার রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) প্রকল্পের কাজ না করেই আড়াই লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে দুই ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতার বিরুদ্ধে।

[৩] বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খোদ ইউপি চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

[৪] জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে দ্বিতীয় পর্যায়ে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) প্রকল্পগুলোর মধ্য থেকে বসন্তপুর ইউনিয়নের ১ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে দু’টি প্রকল্পের আওতায় ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু কাজ না করেই উপজেলার সহকারী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বিজয় কুমার প্রামাণিকের সাথে যোগসাজশ করে প্রকল্পের পুরো টাকা তুলে নেন প্রকল্পের সভাপতি দুই আওয়ামী লীগ নেতা।

[৫] ১ নম্বর ওয়ার্ডের শায়েস্তাপুর ঈদগাহ থেকে ইসলাম মোল্লার বাড়ী পর্যন্ত রাস্তা সংস্কারের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয় ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এই রাস্তায় এক ঝুড়ি মাটিও ফেলেননি প্রকল্পের সভাপতি ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক মুকুল। অথচ প্রকল্পের পুরো টাকাই তুলে নিয়েছেন তিনি। একইভাবে ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বড় ভবানীপুর গ্রামের জুবায়েরের পোল্ট্রি ফার্ম থেকে ফাহিম মেম্বারের বাড়ী পর্যন্ত ইটের রাস্তার পাশে মাটি ফেলে সংস্কারের জন্যও বরাদ্দ দেওয়া হয় ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা। কিন্তু নামমাত্র কিছু মাটি ফেলে প্রকল্পের সভাপতি ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহিন ফকির শাফিন পুরো টাকাই তুলে নিয়েছেন শাহিন ফকির শাফিন।

[৬] এ বিষয়ে বসন্তপুর ইউপির চেয়ারম্যান মীর্জা বদিউজ্জামান বাবু বলেন, প্রকল্পের সভাপতিরা টাকা তুলে নিলেও আসলে রাস্তা দু’টিতে কোন কাজ করা হয়নি।

[৭] বসন্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিয়া বলেন, তাদের কারণে আমাদের দলেরও বদনাম হচ্ছে।

[৮] সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.সাঈদুজ্জামান খান বলেন, যদি প্রকল্পের সভাপতিরা রাস্তায় কাজ না করে টাকা আত্মসাৎ করে থাকেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত