প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ইবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে মানববন্ধন, প্রতিবাদে ছাত্রলীগের প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

ইবি প্রতিনিধি : [২] ছাত্রলীগের সাবেক নেতা, বহিরাগত ও শিবিরকর্মীদের নিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নাম ব্যবহার করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) উপাচার্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে ষড়যন্ত্রমূলক মানববন্ধন করার প্রতিবাদে প্রেস বিজ্ঞপ্তি প্রদান করেছে ইবি শাখা ছাত্রলীগ।
[৩] রবিবার (২৬ জুলাই) ইবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ রাকিবুল ইসলাম রাকিব বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার জরুরী সিদ্ধান্ত মোতাবেক জানানো যাচ্ছে যে, ছাত্রলীগ সবসময় ইতিবাচক কাজের ধারক এবং বাহক। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ইতিবাচক কাজের অংশীদার হতে চায়। ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ বা কোন ব্যক্তিকে হেয় প্রতিপন্ন করার উদ্দেশ্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কথাটি ব্যবহার না করার জন্য সকলকে অনুরোধ করা যাচ্ছে। আমরা জানি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড.হারুন উর রশীদ আসকারী একজন সৎ নির্লোভ এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শবান একজন ব্যক্তি তার তার নামে মানববন্ধনের নামে কতিপয় বিতর্কিত ব্যক্তিরা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে সাবেক শিবির কর্মীর হাতে ব্যানার তুলে দিয়েছেন এবং তা নিয়ে কিছু সংবাদ মাধ্যমে নেতিবাচক সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে বলে আমরা মনে করি। তাই পরবর্তীতে এই সমস্ত কাজ থেকে সকলকে বিরত থাকার নির্দেশ প্রদান করা হলো।
[৪] এ ব্যাপারে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন, ভিসি বিরোধী আন্দোলনের সাথে ইবি শাখা ছাত্রলীগের কোন সম্পৃক্ততা নেই। তিনি সকলকে ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে এসব কর্মকান্ডে জড়িত না হওয়ার জন্য আহবান জানান। ভিসির বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট দাবি করে পলাশ বলেন, বর্তমান ভিসি ড. রাশিদ আসকারীর আমলে ক্যাম্পাসে যে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে তা সর্বমহলে প্রশংসিত। আসকারী মেয়াদের ২৫ দিনের মাথায় তারা কেন এখন এসব কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন তা সকলের জানা।
[৫] এদিকে ইবির নির্বাচিত বঙ্গবন্ধু পরিষদ, অফিসার্স এসোসিয়েশনসহ বেশ কয়েকটি পেশাজীবি সংগঠন ইবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে করা মানববন্ধনের প্রতিবাদে বিবৃতি প্রদান করেছেন।
[৬] উল্লেখ্য, গত (২৫ জুলাই) কুষ্টিয়া শহরের থানা মোড়ে কিছু বহিরাগত ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এবং দুর্নীতির দায়ে আজীবন কালো তালিকাভুক্ত শিক্ষক মাহবুবুল আরফিনসহ উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশীদ আসকারীর অপসারণের দাবিতে মানব বন্ধন করেন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত