প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] স্বাধীনতার ৪৯ বছরেও নির্মিত হয়নি শেরপুরে মহারশি নদীর উপর ব্রীজটি

তপু সরকার : [২] হাজার হাজার মানুষের চরম জন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে এলাকাবাসী বলেন। ঝিনাগাতী নলকুড়া ইউনিয়নের মরিয়মনগর-ডাকাবর রাস্তার মাঝপথে মহারশি নদীতে একটি ব্রীজ নির্মানের দাবী ওঠে দেশ স্বাধীনের পর থেকেই। প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে থেকে বিভিন্ন সময় ব্রিজ নির্মানের আশ্বাসও পাওয়ায় যায়। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়িত হয়নি।

[৩] নলকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী ফর্সা জানান, এ পথে উপজেলার নলকুড়া, কুশাইকুড়া, ভারুয়া, ফাকরাবাদ, ধোপাকুড়া, ভারুগাঁও, মানিককুড়া, গজারীকুড়া, গজারীপাড়া হলদিগ্রাম, জারুলতলা, বাঐবাধা, বারোয়ামারী, ডাকাবর, রামেরকুড়া, শালচুড়া ও প্রায় ২০ গ্রামের বাসিন্দারা যাতায়াত করে থাকে। তিনি বলেন, এ নদীর উপর একটি ব্রীজ নির্মানের জন্যে উপজেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় কমিটির সভায় বিভিন্ন সময় আলোচনাও হয়েছে। আশ্বাসও পাওয়া গেছে। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়িত হয়নি।

[৪] নলকুড়া গ্রামের জাহিদুল হক মিলন, মিন্টু মিয়া, মো.আলী, মরিয়ম নগর গ্রামের জেমস মারাক, মরিয়মনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অঞ্জন আরেং, ঝিনাইগাতী মহিলা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ খলিলুর রহমানসহ ভুক্তভোগী আরও অনেকেই জানান, এ রাস্তার উভয় পাশে ২টি মহাবিদ্যালয়, ৪টি উচ্চ বিদ্যালয়, ২টি দাখিল মাদ্রাসা, ৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩টি বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ সরকারি বেসরকারি দপ্তর রয়েছে।

[৫] প্রতিদিন কোমলমতি শিশু কিশোর থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার শতশত পথচারী এ পথে যাতায়াত করে থাকে। এ নদীর উপর ব্রীজের অভাবে পথচারীদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। ৩ থেকে ৪কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে আসতে হয় স্কুল, কলেজ, হাট-বাজার ও অফিস আদালতে। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত