প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হজ উপলক্ষে ওষুধ ও ভ্যাকসিন ক্রয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের আহবান করা সব দরপত্র বাতিল করেছে সরকার

আনিস তপন : [২] করোনা মহামারি জনিত কারণে চলতি বছর বিশ্বের অন্যন্য দেশের নাগরিকদের ছাড়া সীমিত পরিসরে হজ পালনের বিষয়ে সৌদি সরকার সিদ্ধান্ত নেয়ায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগেরর মাধ্যমে আর কোন ভ্যাকসিন (Vaccine) ক্রয় করা হবে না।

[৩] আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পবিত্র হজ বাতিলের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশের করণীয় নির্ধারণ করতে আজ বুধবার ধর্মমন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক আন্ত:মন্ত্রণালয় (অনলাইন) সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

[৪] ধর্ম সচিব মো. নূরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় আরো সাদ্ধান্ত নেয়া হয়, ইতোমধ্যে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়েরর মাধ্যমে এ সংক্রান্ত ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী ক্রয়ের জন্য এর আগে আহবান করা সব দরপত্র বাতিল করা হয়েছে।

[৫] সভায় জানানো হয়, বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে কোন ব্যক্তি হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যেতে পারবে না। শুধুমাত্র সৌদি আরবে অবস্থানরত বিভিন্ন দেশের নাগরিক এবং সেদেশের নাগরিকরা সীমিত পরিসরে হজে অংশ নিতে পারবেন।

[৬] এতে আরো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, চলতি বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যস্থাপনার যাদের প্রাক-নিবন্ধনের মেয়াদ বৈধ ছিল তা ২০২১ সালের জন্য বলবৎ থাকবে। নিবন্ধিত হজযাত্রীদের জমা করা টাকা ২০২১ সালের প্যাকেজ মূল্যের সঙ্গে সমন্বয় করা হবে।

[৭] তাছাড়া নিবন্ধন বাতিলকারী হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধন ও নিবন্ধনের টাকা কোন প্রকার কর্তন ব্যতিত ফেরৎ দেয়া হবে। সরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের ক্ষেত্রে সোনালী ব্যাংক থেকে প্রাক-নিবন্ধন ও নিবন্ধনের অর্থ সরাসরি হজযাত্রীর একাউন্টে স্থানান্তর করা হবে। কোন হজযাত্রীর ব্যাংক হিসাব না থাকলে তাঁর ইচ্ছানুযায়ী চেক/পে-অর্ডারের মাধ্যমে পরিশোধ করা হবে।

[৮] বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীদের ক্ষেত্রে নিবন্ধনের জন্য জমা করা অর্থ হজযাত্রীর ইচ্ছানুযায়ী সরাসরি ব্যাংক থেকে অথবা এজেন্সির মাধ্যমে গ্রহণ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে প্রাক-নিবন্ধনের জন্য জমা করা অর্থ পূর্বের ন্যায় পরিচালক, হজ অফিস, ঢাকা থেকে হজযাত্রীর ইচ্ছানুযায়ী সরাসরি তাঁর ব্যাংক হিসাবে চেক এর মাধ্যমে অথবা এজেন্সির মাধ্যমে ফেরৎ দেয়া হবে।

[৯] সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধিত কোন হজযাত্রী নিবন্ধন বাতিল করে টাকা ফেরত চাইলে তা অনলাইনে অথবা হজযাত্রীর ইচ্ছানুযায়ী ফেরৎ প্রদান করার জন্য আগামী ১২ জুলাই এর মধ্যে নিবন্ধন প্রক্রিয়ার অনুরূপ একটি নিবন্ধন বাতিল প্রক্রিয়া (Software) তৈরী করে ই-হজ সিস্টেমে সংযুক্ত করা হবে। নিবন্ধন বাতিলে ইচ্ছুক হজযাত্রীগণকে স্ব স্ব নিবন্ধন কেন্দ্র থেকে নিবন্ধন বাতিলের আবেদন করতে হবে। নিবন্ধনে বাতিলের জন্য ১৩ জুলাই থেকে আগ্রহীরা আবেদন করতে পারবেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত