প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]পরিবহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করলে আইনগত ব্যবস্থা : ওবায়দুল কাদের

আবুল বাশার নূরু : [২] একই সঙ্গে সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী বলেন, সরকারের সমালোচনাকে আপনারা নিত্য রুটিন ওয়ার্কে পরিণত করবেন না

[৩] সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পরিবহনে বাড়তি ভাড়া আদায় করছে বলে আমরা অভিযোগ পাচ্ছি। করোনার এই দুঃসময়ে যে সকল পরিবহন অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে ও স্বাস্থ্যবিধি মানছে না তাদের ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বিআরটিএ, ডিএমপি, হাইওয়ে পুলিশ, জেলা পুলিশ, জেলা প্রশাসন ও ভিজিলেস টিমসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করছি।

[৪] বৃহস্পতিবার সরকারি বাসভবন থেকে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

[৫] তিনি পরিবহন মালিক সমিতিকে সরকারি নির্দেশনা পালনে আবারও অনুরোধ জানান। একইসাথে সংকটের সময়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের মানবিক সহযোগিতার দৃষ্টান্ত স্থাপনেরও আহ্বান জানান তিনি।

[৬] সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্বে করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সর্বশেষ ২১ তম স্থানে নেমে এসেছে। এই পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটতে পারে এটাই বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা। এ অবনতিশীল পর্যায়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে শৈথিল্য প্রদর্শন পরিস্থিতিতে আরও নাজুক করে তুলবে। তাই সরকারের পাশাপাশি সামাজিক, সংস্কৃতি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সমূহকে সচেতনতা তৈরিতে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।

[৭] বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, এখানে ঐক্যবদ্ধ থাকা সংকট সমাধানে সবচেয়ে বড় শক্তি। এতে লড়াইয়ে ময়দানে থাকা যোদ্ধারা মনোবল পাবে। তাই আমি বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলকে বলব সরকারের সমালোচনাকে আপনারা নিত্য রুটিন ওয়ার্কে পরিণত করবেন না। এই ধরনের অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি করোনা সংক্রমণ বা ভাইরাসের প্রাণশক্তি যোগাচ্ছে।

[৮] অনেক হাসপাতালে করোনা রোগীকে উপেক্ষা করা হচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, অভিযোগ আছে অনেক হাসপাতালে করোনা রোগীকে উপেক্ষা করা হচ্ছে। যথাযথ যত্ন সেবা দেওয়া হচ্ছে না। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখার জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও করোনা যোদ্ধাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এ সংকটের হাসপাতালে সেবা না পেলে রোগীরা যাবে কোথায়।

[৯] করোনা মোকাবিলায় শেখ হাসিনার প্রশংসা করে তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের ফরেন এক্সচেঞ্জ রিজার্ভ সর্বশেষ ৩৪ মিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। খাদ্য নিরাপত্তা আমরা এখন শক্ত অবস্থানে। আগামী ছয় মাসের খাদ্য আমাদের মজুদ আছে। সামনে আছে কল্যাণমুখী বড় বাজেট। এই সংকটে সকলকে আসা না হারিয়ে হতাশার আবর্তে বিবর্তিত না হয়ে আশা নিয়ে মনোবল নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ