প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মাদারীপুরে ১১ নিহত ও আহত ৪ পরিবারের চলছে শোকের মাতম: মৃতদেহ দেশে আনতে চান পরিবার, দালালদের বিচার দাবী

এম.আর.মুর্তজা,মাদারীপুর : [২] স্বপ্ন পূরণের আশায় স্থানীয় দালালদের আশ্বাসে বিদেশে পাড়ি জমিয়ে ছিল মাদারীপুরের বেশ কিছু যুবক। কিন্তু সেই আশার গুড়েবালি। তাদেরকে লিবিয়া অবস্থানরত দালালরা জিম্মি করে দফায় দফায় টাকা দাবী করেন। এক পর্যায়ে দালালদের দাবিকৃত টাকা না দিতে পারায় গুলি করে হত্যা করে মাদারীপুরের ১১ জনকে, গুলিতে আরো আহত হয় ৩ জন। নিহত ও আহত পরিবারের দাবী, মৃতদেহ স্বজনদের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার। আর দোষীদের শাস্তির দাবী করেছেন ভূক্তভোগি পরিবার। প্রশাসনও দালালদের শাস্তির আওতায় আনার চেষ্টা করছেন বলে দাবী করছেন।

[২] নিঁখোজের দুই দিন আগে নির্মম নির্যাতনের করুণ আকুতি জানিয়েছিলেন সদর উপজেলার কুনিয়ার মনির আকন। তার কথা শুনে পরিবারও দালালদের দাবী করা ৭ লাখ টাকা সংগ্রহের চেষ্টা করছিল। কিন্তু তার আগেই লিবিয়িার মিলিশীয়া বাহিনীর হাতে নিঁখোজ হয় মনির আকন। বিষয়টি জানাজানি হলে পরিবারের নেমে আসে শোকের ছায়া। কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন স্বজনরা। পরিবারের দাবী, স্থানীয় দালাল নূর হোসেনের মাধ্যমে পাঁচ মাস আগে ইতালি যাওয়ার কথা বলে সাড়ে চার লাখ টাকা নিয়েছিল। এখন মৃত্যুর সংবাদ গা-ঢাকা দিয়েছে নুর হোসেন। তবে তার ভাই লিবিয়া থেকে মোবাইলে বিষয়টি স্বীকার করেন। লিবিয়ায় গুলি করে ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার পর মাদারীপুর জেলার ১১ যুবকের পরিবারে। এতে উদ্বিঘ্ন-উৎকণ্ঠায় রয়েছেন নিখোঁজ যুবকদের পরিবার।

[৩] লিবিয়ায় হতাহতের ঘটনার খবর শুনে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে বাংলাদেশি দালাল রাজৈর উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের মজিদ শেখের ছেলে জুলহাস শেখের বাড়িতে হামলা করে নিখোঁজ যুবকদের অভিভাবক ও এলাকাবাসী। এ খবর পেয়ে রাজৈর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পুলিশের কাছে দালাল জুলহাস শেখ নিজেকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বলে পরিচয় দেয়। এ সময় পুলিশ জুলহাসকে নিয়ে মাদারীপুর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করে।

[৪] নিহতরা হলেন সদর উপজেলার জাকির হোসেন, জুয়েল হোসেন, ফিরোজ ও শামীম, রাজৈর উপজেলার বিদ্যানন্দী গ্রামের জুয়েল হাওলাদার, একই গ্রামের মানিক হাওলাদার (২৮), টেকেরহাট এলাকার আসাদুল, মনির হোসেন ও আয়নাল মোল্লা, ইশিবপুর এলাকার সজীব ও শাহীন। আহতরা হলেন, সদরের ফিরোজ বেপারী, ইশিবপুরের সম্রাট খালাসী ও কদমবাড়ীর মো. আলী।

[৫] অনেক পরিবারের লোকজন জানেও না তাদের সন্তান আদৌ বেঁচে আছে কি না। অনেকে আবার হত্যাকান্ডের খবর শুনেছে। নিখোঁজ যুবকদের সঠিক পরিচয় না পাওয়ায় তাদের পরিবারকে খুঁজে বের করা কঠিন হয়ে পড়েছে। মাদারীপুর জেলা প্রশাসক দোষীদের শাস্তির আশ্বাস দেন। সেই সাথে মৃতদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার কথাও বলেন।

[৬] হোসেনপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা নিখোঁজ জুয়েল হাওলাদারের পিতা রাজ্জাক হাওলাদার ও মা রহিমা বেগম বলেন, “আমাদের ছেলেসহ রাজৈরের বিভিন্ন এলাকার বেশ কয়েকজনকে দালাল চক্র লিবিয়া নেওয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছ থেকে ৪/৫ লাখ টাকা চুক্তি করে নিয়ে যায় ৩/৪ মাস আগে। তারপর লিবিয়ার ত্রিপলী না নিয়ে বেনগাজী নামে এক গ্রামে আটকে রেখে নির্যাতন শুরু করে। এরপর ভয়েজ রেকর্ডে নির্যাতনের শব্দ পাঠিয়ে আরো ১০ লাখ টাকা দাবী করে। আমরা হোসেনপুর জুলহাস শেখ নামের ওই দালালের বাড়িতে গিয়ে ১০ লাখ টাকা দিয়ে আসি। মানুষের কাছে শুনতে পাচ্ছি লিবিয়ায় গুলি করে অনেক বাংলাদেশীকে হত্যা করা হয়েছে। আমাদের ছেলে বেঁচে আছে কি না তাও জানতে পারছি না। এখন পর্যন্ত ছেলের কোনো খোঁজ পাই নাই।”

[৭] একই গ্রামের নিখোঁজ মানিক হাওলাদারের পিতা শাহ আলম হাওলাদার বলেন, “আমার ছেলে মানিককে লিবিয়া নেওয়ার কথা বলে দালাল জুলহাস আমার কাছ থেকে প্রথমে ৪ লাখ টাকা নিয়েছে। পরে ছেলেকে বেনগাজী আটকে রেখে ভয়েজ রেকর্ডের মাধ্যমে ১০ লাখ টাকা দাবী করে। আমি আমার ছেলেকে আনতে জুলহাসের বাড়ি গিয়ে টাকা দিয়ে আসি। এখনো আমার ছেলের কোনো খোঁজ পাচ্ছি না।”

[৮] রাজৈর থানার ওসি শওকত জাহান বলেন, “লিবিয়ায় লোক নেয়া দালাল রাজৈরের জুলহাস শেখের বাড়িতে এলাকাবাসী হামলা করে এমন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা ওই বাড়িতে গেলে জুলহাস বলে আমার করোনা হয়েছে। করোনার কথা শুনে আমরা জুলহাস শেখকে মাদারীপুর সদর হসাপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি করি।”

[৯] মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, “লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশীদের হত্যার কথা শুনেছি। যাদের মধ্যে মাদারীপুরের লোকজনই বেশি। মাদারীপুরের কতজন মারা গেছে এ তথ্য আমি এখন পর্যন্ত প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রনালয় থেকে পায়নি। মন্ত্রনালয়ে আমি যোগাযোগ করেছি। তারা বলেছে আমাকে মাদারীপুরের কতজন মারা গেছে সে তথ্য দিবে। লাশ দ্রুত কিভাবে দেশে আনা যায় আমি সে বিষয়ে মন্ত্রনালয়ের সাথে কথা বলেছি।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত