প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তামিমের লাইভে ভক্তদের উদ্দেশে চার পাণ্ডবের বার্তা

স্পোর্টস ডেস্ক : সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রায়শই জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের সমর্থকদের বিভিন্ন গ্রুপ দেখা যায়। আলাদা আলাদা ক্রিকেটারদের ভক্তদের এসব গ্রুপে নির্দিষ্ট খেলোয়াড়দের গুণগান গাওয়া হয়। সেই সঙ্গে চলে অন্য খেলোয়াড়দের প্রতি বিভিন্ন কটুক্তিও।

বিষয়টি নজর এড়ায়নি জাতীয় দলের ক্রিকেটারদেরও। ভক্তদের এমন আচরণে বেশ হতাশা প্রকাশ করেছেন জাতীয় দলের চার পাণ্ডব; তামিম, মাশরাফি, মুশফিক এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। সেই সঙ্গে ভক্তদের অনুরোধ করেছেন এসকল কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে এবং দলকে সবসময় সমর্থন দিয়ে যেতে। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবালের সঙ্গে ফেসবুক লাইভে এসে এমনটাই জানিয়েছেন এই চার পাণ্ডব।

এ প্রসঙ্গে তামিম বলেন, এখন দেখেন প্রতিটা ক্রিকেটারের ফ্যানদের গ্রুপ থাকে। তামিমিয়ান, মুশফিকিয়ান, মাশরাফিয়ান। সব দর্শকদের পছন্দের খেলোয়াড় থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমার কাছে মাঝে মাঝে মনে হয় কি এই গ্রুপের কারণে মাঝে মাঝে একজন আরেকজনকে আক্রমণ করতে থাকে। এখন এই আক্রমণ কতটা ঠিক সেটা আমি জানি না। কিন্তু আমি অনুরোধ করবো এই আক্রমণটা যেন না করেন আপনারা (দর্শক)। এই গ্রুপটা যেমন আছে থাক, সবাই আমরা বাংলাদেশের জন্য খেলি, সবাই বন্ধু-ভাই। তো আপনারাও এমন বন্ধু ভাই হয়ে থাকেন। তামিমের সমর্থকরা মুশফিককে গালি দিবে বা মুশফিকের সমর্থকেরা তামিমকে গালি দিবে, এটা আপনারা কইরেন না।
তামিমের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে মাশরাফি বলেন, এটা আমার অনেক দিন ধরে মাথায় এসেছে। আমি এই বিষয়ে একমত। আমাদের ক্ষতি কিন্তু আমরাই করতে পারি। আমাদের ক্ষতি কিন্তু বাইরের মানুষরা এসে করবে না। এটা কিন্তু একটা বড় ক্ষতি। আজকে আমাকে যে পছন্দ করে সে তামিমকে গালি দিচ্ছে, মুশফিক্কে যে পছন্দ করে সে আমাকে গালি দিচ্ছে। আসলে আমরা কার জন্য খেলি? আমরা আপনাদের জন্য খেলি, আমরা বাংলাদেশের জন্যই খেলি। গালি যদি দেন আমাদের সবাইকে একসাথে দেন। খেলা নিয়ে একসাথেই গালি দেন সবাইকে।
তিনি আরও বলেন, ‘সমালোচনা এটা অবশ্যই থাকবে। কিন্তু নির্দিষ্ট করে একজনকেই গালি দেবেন না। মুশফিক আজকে ভালো খেলেছে দেখে আপনি আর দশজনকে গালি দিবেন সেটা তো হতে পারে না। প্রত্যেকটা সাপোর্টারের আলাদা পছন্দের খেলোয়াড় আছে। তার মানে এই না যে প্রকাশ্যে এসে সেগুলা দেখানো। সবাই কিন্তু আমরা বাংলাদেশের জন্য খেলছি, আপনার জন্যই খেলছি। আলাদা আলাদা খেলোয়াড়ের ফ্যানবেজ থাকুক, কিন্তু কাউকে অসম্মান করা বা কাউকে টেনে নামিয়ে নিয়ে আসার মতো কাজগুলা যেন না করি। এগুলো খুবই দৃষ্টিকটু। আমি আশা করবো, ক্রিকেট ভদ্রলোকের খেলা। আমাদের দর্শকেরা সবসময় আমাদের সাথে থাকবেন।

জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি দলপতি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আসলে কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি করে আসলে কোনো লাভ হয়না। কাঁদাটা নিজের গায়েই লাগে। সবারই পছন্দের খেলোয়াড় থাকে। তাঁর মানে এই না যে আমি অন্যকে অপছন্দ করবো। একটা জিনিস সবসময় মনে রাখতে হবে, ভালোর কোনো বিকল্প নেই। আপনি যদি ভালো কাজ করেন তাহলে এর ফল ভালোই পাবেন। কাউকে সম্মান করতে তাঁর বিনিময়ে সম্মান আপনিই পাবেন। অসম্মান কখনো পাবেন না। এই জিনিসটা একটু খেয়াল রাখবেন।’

মাশরাফি-তামিমের সঙ্গে একই সুরে মুশফিক বলেন, আমরা বভাংলাদেশ দলকে প্রতিনিধিত্ব করি। অনেক সময় সফল হই, অনেক সময় হই না। তাঁর মানে এই না যে একজনের জন্য দল হেরে যাচ্ছে, একজনের কারণেই দল জিতে যাচ্ছে। আমার মতে পুরো দলের সবাই আমরা সমান। দর্শক, মিডিয়া সবাই কিন্তু আমরা এর অংশ। জিতলেও সবাই একসাথে জিতি, হারলেও সবাই একসাথে। সম্মানটা খুবই জরুরি এবং আমি মনে করি সম্মানটা সবারই দেয়া উচিৎ। আমি কখনোই চাবো না আমার ভক্তরা তামিম, রিয়াদ ভাই, সাকিব, মাশরাফি ভাইকে খারাপ বলুক। এটা আসলে আমিও মেনে নিতে পারি না। আমি মনে করি এটা সবাই খেয়াল রাখবেন।- ক্রিকফ্রেঞ্জি

 

সর্বাধিক পঠিত