প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] শ্রমিকদের হেঁটে আসতে বাধ্য করা মানবাধিকারের লংঘন, বাড়বে করোনা ঝুঁকি, বললেন আইনজ্ঞরা

এস এম নূর মোহাম্মদ : [২] অফিস-আদালত, গণপরিবহন বন্ধ। মানুষ প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হচ্ছে না। কিন্তু আজ রোববার থেকে গার্মেন্টস ও বেসরকারি অফিস খোলা থাকায় জীবিকার তাগিদে সবকিছু উপেক্ষা করে দলে দলে ঢাকায় ফিরছেন কর্মজীবী মানুষ। পোশাক শ্রমিকরা পরিবহন না পেয়ে হেঁটে, মালবাহী লরি ও পিকআপভ্যান চেপে ঢাকায় ফিরছেন। গাদাগাদি করে গ্রাম থেকে ঢাকামুখী এসব মানুষের ফেরা কতটা নিরাপদ তা নিয়ে প্রশ্ন বিভিন্ন মহলে। বিষয়টি করোনা ঝুঁকি বাড়াবে এবং তা অমানবিক বলছেন আইনজ্ঞরা।

[৩] সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ বলেন, শ্রমিকদের আসার জন্য পরিবহনের ব্যবস্থা করা উচিৎ ছিল। বিষয়টি অবশ্যই অব্যবস্থাপনা। যেখানে দোকানে কিছু কিনতে হলে আমাদের দূরত্ব বজায় রেখে দাড়াতে হয়, সেখানে এরকম গাদাগাদি করে আসা কোনভাবেই উচিৎ না।

[৪] সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী বলেন, সরকার চলছে একদিকে আর গার্মেন্টস মালিকরা অন্যদিকে। সরকার ছুটি বাড়িয়েছে, মালিকরা শ্রমিকদের আসতে বাধ্য করছে, এটাতো দ্বৈত নীতি। এটা খুবই দুর্ভাগ্যজনক, অমানবিক। এতে করে দেশকে চরম বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দেয়া হচ্ছে। এখানে সরকারের গাফিলতি রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত জানানো দরকার।

[৫] অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ বলেন, লোকজনকে দূর দূরান্ত থেকে হেঁটে আসতে হচ্ছে। বিষয়টি খুবই অমানবিক। এটি মানবাধিকারের চরম লংঘন। শ্রমিকদের বলা হচ্ছে, না আসলে চাকরি থাকবে না। সরকারের এখানে হস্তক্ষেপ করা দরকার। যাতে কারো চাকরির সমস্যা না হয়।সম্পাদনা : রাশিদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত