প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

করোনা আর এনথ্রাক্স, একইসূত্রের ভাইরাস, ভয় জয় করতে হবে

রবিউল আলম : প্রতিটি রোগেরই ভয়াবহতা আছে, তবে আতঙ্কের চেয়ে বড় নয়। ভয়কে জয় করেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। মনে পড়ে এই সেদিনে কথা, এনথ্রাক্সের ভয়াবহতায় আমরা আতঙ্কি হয়েছিলাম প্রচার মাধ্যম থেকে। প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস একপর্যায়ে রেড অ্যালার্ট ঘোষণা করেছিলো। একের পর এক অপসংবাদ আসছে, লক্ষ্মীপুরে চার বছরের এক শিশুকে নাকি এনথ্রাক্সে পেয়ে বসেছে, শিশুর মা গরুর মাংস খেয়েছিলো, সিরাজগঞ্জে কাকে মরা গরু খেয়েছিলো, হাজারও গুজবে এনথ্রাক্স একাকার। জাতীয় প্রেসক্লাবে আলোচনায় কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতীয় অধ্যাপকদের মাঝে আমি, কী বলবো বুঝতে পারছিলাম না।

জানতে চাইলাম ১২০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় পানি জীবাণুমুক্ত হয়, মাংসে ১৪০ ডিগ্রি তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়, সিদ্ধ মাংসে জীবাণু থাকে কীভাবে? পরের দিন হাজারীবাগে এনথ্রাক্স বিরোধী সমাবেশে ছয় মন্ত্রী, সাংবাদিক, সমাজকর্মীদের গরুর মাংস খাওয়ানো হলো। এনথ্রাক্সের আতঙ্ক আজ নেই। করোনাও থাকবে না, কিন্তু করোনার আতঙ্ক দূর করবো কী করে। লাখ লাখ মানুষ করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যুর সংখ্যা ৩৮০০, স্বভাবিক নিয়মে মানুষ মরছে। অস্বাভাবিকভাবে মানুষ বাঁচতে চায়, মাস্ক নিয়ে করোনা প্রতিরোধ করতে চায়, হুজুগে পড়ে ব্যবসায়ীরা দ্বিগুণ-তিনগুণ দাম হাঁকায়।

করোনাভাইরাস এখনো বাংলাদেশে আসেনি, এসেছে করোনায় আক্রান্ত দুজন রোগী। শুনেছি ২৩ ডিগ্রি তাপমাত্রায় কোরোনাভাইরাস বিস্তার হতে পারে না। আমাদের তাপমাত্রা ৩০ অতিক্রম করেছে, চিনেও করোনাভাইরাস স্বাভাবিক হয়ে আসছে। আল্লাহ চান তো রহমত বর্ষিত হবেই ইনশাআল্লাহ। শেখ হাসিনা ভাগ্যবান মানুষ, প্রতিদিন রহমত প্রার্থনা করেন, কোরআন তেলাওয়াত, তাহাজ্জুতের নামাজ পড়েন। হতাশ হওয়ার কিছু নেই। আশার আলোই আমাদের সঠিক পথের সন্ধান দিতে পারে, হুজুগ নয়। লেখক : মহাসচিব বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত