প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কৃষক পরিবারকে ভিটে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের পাঁয়তারা , প্রতিবাদে মানববন্ধন

তৌহিদুর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি: [২] ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরে একটি অসহায় কৃষক পরিবারকে ভিটে বাড়ি থেকে উচ্ছেদের পাঁয়তারার প্রতিবাদের মান্ববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার দুপুরে উপজেলার বলারামপুর গ্রামে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। এতে ভূক্তভোগী ইয়াছিন মিয়া ও তার পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও এলাকার সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

[৩] উল্লেখ্য বিজয়রগর উপজেলার চরইসলামপুর ইউনিয়নের বলারামপুর গ্রামের বাসিন্দা মৃত সুবেদ আলীর ছেলে মোঃ ইয়াসিন মিয়া । ইয়াসিন মিয়ার পিতা মৃত সুবেদ আলী সাব কাবলা দলিল মূলে খেলু মিয়ার কাছ থেকে সাড়ে ৩৭ শতাংশ ভ‚মি ক্রয় করে। ক্রয়সূত্রে মালিক হয়ে তিনি নিজ ছেলে ইয়াসীন মিয়ার কাছে ১৯৯৭ সালে ৭০৬ নং দলিল মূলে ৫ শতাংশ ভূমি বিক্রয় করে। অবশিষ্ট সাড়ে সাড়ে ৩২ শতাংশ ভ‚মির মাঝে মৃত আব্দুল হাসেমের ছেলে মো. হাবিব উল্লার কাছে দুই দলিলে আট শতাংশ ভূমি বিক্রি করেন। অবশিষ্ট সাড়ে ২৩ শতাংশ ভূমি সুবেদ আলীর কাছে থাকা অবস্থায় মো. রব্বানী মিয়ার কাছে বাস্তবে বিক্রি করে। কিন্তু রব্বানী ২৩ শতাংশ ভ‚মির পরিবর্তে জালিয়াতী করে পুরো ৩২ শতাংশ ভূমি লেখাপড়া না জানা সুবেদ আলীর কাছ থেকে টিপ সইয়ের মাধ্যমে দলিল সম্পাদন করে।

[৪] পরবর্তীতে রব্বানী মিয়া ২০১৯ সালের ১০ এপ্রিল প্রতারণা করে দলিল মূলে ৩২ শতাংশ পুরো ভ‚মিটি কাসন মিয়ার স্ত্রী ফরিদা খাতুনের নামে দলিল সম্পাদন করে বিদেশ চলে যান। পরবর্তীতে ফরিদা খাতুন দলিল মূলে মালিক হয়ে সর্বপ্রথম ১৯৯৭ সালের দলিলে কেনা সুবেদ আলী মিয়ার ছেলে ইয়াসীন মিয়ার প্রায় ২৫ বছর যাবত ভোগ দখল করে থাকা বসত বাড়ির জায়গা টুকু দখল করার জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে । বসত বাড়ির মালিক ইয়াসিন মিয়ার উপর ফরিদা তার পরিবারের লোকজন ও সস্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে হামলাও চালিয়েছে বলে অভিযাগ রয়েছে।

[৫] উপায়ন্তর না দেখে বসত বাড়ি রক্ষার জন্য আদালতে মামলা ও জীবন রক্ষার্থে তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করেন। মামলা চলাকালীন সময়ে প্রভাবশালী মহলটি গত প্রকাশ্য দিবালোকে দলবল নিয়ে হানা দেয়। তারা ইয়াছিন মিয়ার পরিবারকে স্বেচ্ছায় বসত-ভিটা বাড়ি ছাড়ার হুমকী দেয়। এ সময় তারা ইয়াছিন মিয়ার বাড়ির সামনে থাকা গাছ কেটে ফেলে। ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার এলাকায় একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। পরিবারটির পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত