প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

লালমনিরহাট পৌর মেয়রকে এবার আদালতের শোকজ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: নকশা পরিবর্তন করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পুনঃনির্মাণ কাজ বন্ধ করতে লিগ্যাল নোটিশ পাওয়া লালমনিরহাট পৌরমেয়র রিয়াজুল ইসলাম রিন্টুকে শোকজপত্র পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার(১৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে লালমনিরহাটের সিনিয়র সহকারী জজ আদালত এ শোকজপত্র পাঠান।

এর আগে তিন দিনের সময় দিয়ে বৃহস্পতিবার(১৩ ফেব্রুয়ারি) পৌর মেয়রকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান লালমনিরহাট জজ আদালতের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হাফিজুর রহমান হাফিজ। যার কোনো জবাব দাখিল না করায় লালমনিরহাট সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক সৈয়দ সুফী মো. তাহেরুল ইসলাম বাদি হয়ে সোমবার(১৭ ফেব্রুয়ারি) আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত এ আদেশ দেন।

আদালত ও লিগ্যাল নোটিশ সূত্রে জানা গেছে, লালমনিরহাট পৌরসভার সাপ্টানা মৌজার মাতৃ মঙ্গল কেন্দ্রের পাশে ১৯৭২ সালে ১৪.৫০ শতাংশ জমির উপর সড়কের পাশে পশ্চিম মুখো দৃষ্টিনন্দন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই থেকে জেলাবাসী বিভিন্ন কর্মসুচি এ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পালন করে আসছেন। এরই মাঝে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে আলিসান বাড়ি নির্মাণ করেন জেলার প্রভাবশালী শাখাওয়াত হোসেন সুমন খাঁন। যা শহীদ মিনারের কারনে দৃষ্টির আঁড়ালে পড়ে।

প্রভাবশালীর এই আলিসান বাড়িটি দৃষ্টিনন্দন করতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারটি স্থান্তর করতে এবং পুনঃনির্মাণের নামে নকশা পরিবর্তন করে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ কাজ শুরু করে পৌরসভা। ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৯৩৭ টাকা ব্যায়ে পুনঃনির্মাণ করা শহীদ মিনারের মুল বেদি পরিবর্তন করে উত্তর-পুর্ব কোনায় নেয়া হচ্ছে। ফলে সড়কের চলাচলকারী সর্বসাধারনের দৃষ্টির আঁড়ালে চলে যাচ্ছে এবং দৃষ্টিহীন হয়ে জৌলুস ও মর্যাদা হারাচ্ছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার।

বিষয়টি নিয়ে জেলার সর্বস্থরের মানুষের মাঝে নিন্দার ঝড় উঠে। পুনঃনির্মান কাজ বন্ধ করতে আন্দোলনে নেমে পড়েন জেলার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সর্বস্থরের মানুষ। সরকারের বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দিয়েও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সৌন্দর্য ফেরাতে ব্যর্থ হয়ে লালমনিরহাট সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সাংস্কৃতিক কর্মী সৈয়দ সুফী মোঃ তাহেরুল ইসলাম বাদি হয়ে আদালতের দারস্থ হন। যার প্রেক্ষিতে অ্যাডভোকেট হাফিজুর রহমান হাফিজ শহীদ মিনার পুনঃনির্মাণ কাজ বন্ধ করতে বৃহস্পতিবার(১৩ ফেব্রুয়ারি) তিন দিনের সময় দিয়ে পৌরসভার মেয়রকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান। সময় অতিবাহিত হলেও জবাব দাখিল না করে নির্মাণ কাজ চলমান রাখেন পৌরসভার মেয়র রিয়াজুল ইসলাম রিন্টু।

এ ঘটনায় দ্রুত কাজ বন্ধ করতে লালমনিরহাট সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সাংস্কৃতিক কর্মী সৈয়দ সুফী মোঃ তাহেরুল ইসলাম বাদি হয়ে সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা (৩০/২০২০) দায়ের করেন। মামলাটি আমলে নিয়ে আদালতের বিচারক আগামী ১০ দিনের মধ্যে ‘কেন নির্মাণ কাজে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞ দেয়া হবে না’ মর্মে উপযুক্ত ব্যাখ্যা চেয়ে পৌর মেয়রকে শোকজ পত্র পাঠানো হয়।

জজ আদালতের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হাফিজুর রহমান হাফিজ বলেন, বাদির আবেদনের প্রেক্ষিতে পৌর মেয়রকে তিন দিনের মধ্যে জবাব চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ দেয়া হয়। কিন্তু তার জবাব না দেয়ায় বাদির আবেদনের প্রক্ষিতে আদালত মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করেন এবং মেয়রকে শোকজ করেছেন। যা মেয়ররের অফিস গ্রহন করেছেন। তাই সোমবার থেকে আগামী ১০ দিনের মধ্যে উপযুক্ত জবাব না দিলে আদালত পরবর্তী নির্দেশনা দিবেন বলেও জানান তিনি।

লালমনিরহাট পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম রিন্টুকে তার ব্যবহৃত মোবাইলে একাধিক বার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত