প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশের সাংবাদিকতার দুরবস্থার উপর কি কোনো আলোচনা-সমালোচনা আছে?

 

মহিউদ্দিন আহেমদ : বাংলাদেশের সাংবাদিকতার দুরবস্থার উপর কী কোনো আলোচনা-সমালোচনা আছে? প্রথম আলো এবং ডেইলি স্টারকে আমি বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ দুটি দৈনিক পত্রিকার মর্যাদা দিয়ে থাকি। এই পত্রিকা দুটিতে দেশের বিশিষ্টজনরা লেখা দিয়ে থাকেন। কিন্তু শুনেছি এই দুটি পত্রিকাকে গণভবন এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ঢুকতে দেয়া হয় না। আমি ভাবি, প্রধানমন্ত্রী তাহলে দেশের প্রকৃত অবস্থা কোন সোর্স থেকে জেনে থাকেন? দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো থেকে? তওবা। ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রধানরা শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চেয়েছিলো। তারপরও শেখ হাসিনার পরম বিশ্বাস এখনো তাদের উপর। আর এর বিপরীতে দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে তাদের সিদ্বান্তই চূডান্ত।

পত্রিকা অফিসে মালিক পক্ষ এবং সাংবাদিকদের মধ্যে চরম বিবাদ, কিন্তু শুনেছি এখানেও গোয়েন্দা সংস্থাকে ডাকা হয়, তারা যার পক্ষ নেয়, সেই পক্ষ বিজয়ী হয়। আমি প্রতিদিন দশ-বারোটি দৈনিক পত্রিকা পডার চেষ্টা করি। এর মধ্যে কয়েকটি পডি, পত্রিকার মধ্যে কী পরিমাণ আবর্জনা, গার্বেজ আছে, তা দেখার জন্য। প্রথম আলো, ডেইলি স্টার এতো উন্নত মানের দুটো পত্রিকা, কিন্তু পত্রিকা দুটি দুনিয়ার এতো সব বিষয়ের উপর রাউন্ড-টেবিল করে, কিন্তু পত্রিকার পাঠকরা কি পড়তে চায়, সেই বিষয়ের উপর কোনোদিন একটি রাউন্ড-টেবিল করেনি, করে না। আমরা সিএনএনএ দেখি হোয়াইট হাউজের প্রেস কনফারেন্সে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে সিএনএন প্রতিনিধির বাহাস। আর তার বিপরীতে আমাদের প্রধানমন্ত্রীর প্রেস কনফারেন্সে সিনিয়র সাংবাদিক গোলাম সরোয়ারের বন্দনা। আর এই গোলাম সরোয়ারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী কী গাম্ভীর্যের সঙ্গে উদযাপন করলো আমাদের অন্য সব সম্পাদকরা। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত