প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিএএ ও এনআরসি নিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মিথ্যাচারের তালিকা প্রকাশ করলো কংগ্রেস

মশিউর অর্ণব: সংবাদ সম্মেলনে কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল বলেন, ‘ভারতীয় সংবিধানে নাগরিকত্ব দেয়ার যে বিধান আছে, তাতে ধর্মের কোনো ভূমিকা নেই। দেশের ইতিহাসে এই প্রথমবার ধর্মকে নাগরিকত্বের ভিত্তি করা হয়েছে, যা বিভাজনমূলক।’ হিন্দুস্থান টাইমস

মোদী ও অমিত শাহ বলেছিলেন, এনআরসির সঙ্গে সিএএ এর কোনো যোগাযোগ নেই। অথচ ২০১৯ সালের এপ্রিলেই অমিত শাহ বলেছিলেন, সিএএ প্রথমে আসবে, তারপরে এনআরসি আসবে।

এনআরসির সঙ্গে এনপিআরের কোনো সম্পর্ক নেই। অথচ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, এনপিআর হচ্ছে এনআরসি বাস্তবায়নের প্রথম পদক্ষেপ।এনআরসি এখনও শুরু হয়নি, অথচ এনআরসি প্রয়োগের বিজ্ঞপ্তিটি গত বছরের ১ এপ্রিল থেকেই জারি করা হয়েছে।

মোদী বলেছিলেন, ভারতে কোনো ডিটেনশন সেন্টার নেই। অথচ কেবলমাত্র আসাম রাজ্যেই ৯৮৮ জনকে আটক করে ডিটেনশন সেন্টারে রাখা হয়েছে। মোদী ও অমিত শাহ বলেছিলেন, বিক্ষোভ আটকাতে কোথাও কোনো বলপ্রয়োগ করা হয়নি। অথচ শুধু উত্তরপ্রদেশেই ২৮ জন মারা গেছেন।

২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর একটি সভায় মোদী বলেছিলেন, তার সরকার আসার পর এনআরসি নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। অথচ ২০১৯ সালের ২০ জুন সংসদের যৌথ অধিবেশনে এনআরসির প্রাথমিক বাস্তবায়নের কথা ছিল।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত