প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের নীতি সঠিক নয়

ইয়াসিন আরাফাত : জাতিসংঘের পরমাণু তদারকি বিষয়ক সংস্থা আইএইএ’তে নিযুক্ত রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানোভ মঙ্গলবার নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে এ মন্তব্য করেন। পার্সটুডে

তিনি বলেন, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইরাক অ্যাকশন গ্রুপের প্রধান ব্রায়ান হুক ইরানের ওপর সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের নীতির ধ্বংসাত্মক ফলাফল বর্ণনা করেন। তবে এই নীতির ফলে ইরান যে পরমাণু সমঝোতায় নিজের দেয়া প্রতিশ্রুতি থেকে সরে গেছে এবং এনপিটি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়েছে সে বিষয়ে হুকদের কোনো মাথাব্যথা নেই।

যুক্তরাষ্ট্র ২০১৮ সালের ৮ মে ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে বেরিয়ে গিয়ে তেহরানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। সে সময় ওই সমঝোতায় স্বাক্ষরকারী ৩ ইউরোপীয় দেশ ফ্রান্স, জার্মানি ও ব্রিটেন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন ইরানকে পরমাণু সমঝোতায় অটল থাকার আহ্বান জানিয়ে ঘোষণা দেয়, তারা আমেরিকাকে ছাড়াই এ সমঝোতায় ইরানকে যেসব আর্থিক সুবিধা দেয়ার কথা ছিল তা বাস্তবায়ন করবে।

সম্প্রতি ব্রায়ান হুক স্বীকার করেছেন, সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগের নীতির অংশ হিসেবে ইউরোপীয় দেশগুলোকেও পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেছিলো ওয়াশিংটন।

এদিকে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাবেদ জারিফ গত সোমবার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, ইরানের পরমাণু কর্মসূচির বিষয়টিকে আবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে নিয়ে যাওয়া হলে তেহরান পরমাণু অস্ত্র বিস্তার রোধ চুক্তি বা এনপিটি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতে বাধ্য হবে।সম্পাদনা : মাজহারুল ইসলাম

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত