প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিয়ানমারকে প্রতারক বললো গাম্বিয়া, ৬টি অন্তবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে আন্তর্জাতিক আদালতে আবেদন,

আসিফুজ্জামান পৃথিল : দ্য হেগের আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে রোহিঙ্গা গণহত্যা বিষয়ে গাম্বিয়ার করা মামলার তৃতীয় দিনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এদিন দুই দফার অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম অধিবেশনে নিজেদের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে গাম্বিয়া। পরের অধিবেশনে, যুক্তি উপস্থাপন করার কথা ছিলো মিয়ানমারের। এই সংবাদ লেখার সময় মুলতবি ছিলো শুনানি অধিবেশন।

শুরতেই গাম্বিয়ার পক্ষে তাদের আইনজীবি পল রাইখলার বলেন, ‘প্রথমত, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের প্রতি আচরণে গণহত্যার উদ্দেশ্য অস্বীকার করেছে। দ্বিতীয়ত, গণহত্যার উদ্দেশ্য অনুমান করা হলেও তার ভিত্তিতে অন্তর্বতী আদেশ দেয়া যায় না।মিয়ানমারের আইনজীবী অধ্যাপক সাবাস গণহত্যার উদ্দেশ্য প্রমাণের জন্য সাতটি নির্দেশকের কথা বলেছেন। সেই সাতটি নির্দেশকগুলোর কথা গাম্বিয়ার আবেদনে রয়েছে এবং মিয়ানমার সেগুলো অস্বীকার করেনি। আদালত নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন, সু চি আদালতে রোহিঙ্গা বিশেষণটি ব্যবহার করেননি। শুধুমাত্র বিচ্ছিন্নতাবাদী আরসা গোষ্ঠীর কথা বলার সময় ছাড়া তিনি তাঁদের মুসলিম হিসেবে বর্ণনা করেছেন।’ উদ্বাস্তুদের প্রত্যাবাসন বিষয়ে মিয়ানমারের বক্তব্যকে প্রতারণা অভিহিত করে রাইখলার বলেন, মিয়ানমার নিজেই স্বীকার করেছে যে খুব সামান্য সংখ্যাই ফিরেছে। মিয়ানমারের আইনজীবী মিস ওকোয়া প্রত্যাবাসনের বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহ এবং চীন, জাপান ও ভারতের সহায়তার বিষয়টিকে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করেছেন। এরা প্রত্যাবাসন চান। কিন্তু, প্রত্যাবাসনের পরিবেশ তৈরির দায়িত্ব মিয়ানমারের। মিয়ানমার সেটি পালনে ব্যর্থ হয়েছে।

গাম্বিয়ার পক্ষে আইনজীবী পিয়েঁর দ্য আর্জেন বলেন, গাম্বিয়া স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে এই মামলা করেছে। গাম্বিয়া ওআইসির প্রক্সি বা প্রতিভ‚ হিসেবে মামলা করেনি। গাম্বিয়া ওআইসির সাহায্য চাইতেই পারে। অন্যান্যদেরও সাহায্য চাইতে পারে। সুতরাং, গাম্বিয়া ওআইসির সহায়তা নেয়ায় বলা যাবে না যে ওআইসি এই মামলার আবেদনকারী।তিনি বলেন, ‘গাম্বিয়া ওআইসি মন্ত্রিসভা কমিটির সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর মামলা করেছে বলে মিয়ানমারের আইনজীবী স্টকারের দাবি বিভ্রান্তিকর। মিয়ানমারের সঙ্গে বিরোধ ওআইসির নয়, গাম্বিয়ার। গাম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট জাতিসংঘে গণহত্যার কথা বলেননি বলে যুক্তি দিয়ে বলা হয়েছে ওআইসির সিদ্ধান্তের পরই গাম্বিয়া মামলা করেছে কথাটি ঠিক নয়। গাম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট জাতিসংঘে বক্তব্য দেয়ার পর জাতিসংঘ তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে এবং সেই প্রতিবেদনের তথ্যের ভিত্তিতেই গণহত্যার অভিযোগ নিয়ে গাম্বিয়া আদালতে আসার সিদ্ধান্ত নেয়।’

অধ্যাপক ফিলিপ স্যান্ডস বলেন, ১৯৪৮-এর গণহত্যা সনদের বাধ্যবাধকতা প‚রণ করছে কিনা সে প্রশ্ন তোলার অধিকার গাম্বিয়ার অবশ্যই রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি অতীতের রায়ের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, আন্তর্জাতিক সনদের অংশীদার হিসেবে অন্তবর্তী আদেশের আবেদন করার অধিকার গাম্বিয়ার রয়েছে। তিনি বলেন, ‘অন্তবর্তী আদেশ পরিস্থিতির জন্য সহায়ক হবে না মিয়ানমারের এমন দাবির জবাব হচ্ছে আমরা সে কারণেই সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলেছি। বসনিয়ায় আদেশ দেয়ার পরও সেব্রেনিৎসায় যে গণহত্যা হয়েছিলো, সেই দৃষ্টান্ত দিয়েই আমরা বলেছি সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা কেন প্রয়োজন এবং তার বাস্তবায়নের সময় বেঁধে দেয়া জরুরি। অধ্যাপক সাবাস তার ২০১৩ সালের সাক্ষাৎকারে গণহত্যা প্রতিরোধে যেসব পদক্ষেপ প্রয়োজন বলেছিলেন সেগুলো যদি আদালত তার নির্দেশে অন্তর্ভুক্ত করেন, তাতে আমরা আপত্তি করবো না।’

গাম্বিয়ার পক্ষে শুনানিতে দেশটির আইনমন্ত্রী আববুবকর তামবদু বলেন, মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের জীবন হুমকির মুখে। গাম্বিয়া প্রতিবেশী না হতে পারে, কিন্তু গণহত্যা সনদের স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে গণহত্যা বন্ধ এবং তা প্রতিরোধে তাদের দায়িত্ব রয়েছে। তিনি বলেন, ‘শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত এ বিষয়ে গাম্বিয়া ওআইসির কাছে সাহায্য চেয়েছে। সার্বভৌম দেশ হিসেবে গাম্বিয়া একা এই আবেদন করেছে। গাম্বিয়া গণহত্যা সনদের রক্ষক হিসেবে এই আদালতের কাছে জরুরি ভিত্তিতে অন্তবর্তী ব্যবস্থার নির্দেশনার দাবি জানাচ্ছে।’ সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত