প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সুস্থ্য থাকতে ফাস্টফুডকে না বলুন

জাগোনিউজ : পিৎসা, বার্গার, কোকাকোলা, চিপস – সবকিছু নিয়ে টেলিভিশনের সামনে বসে যাওয়া, এটা অনেক বাচ্চা এবং কিশোর-কিশোরীদের এমনকি বড়দেরও নিত্যদিনের অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে৷ কিন্তু এর পরিণামের কথা কি ভেবে দেখেছেন কখনো? নিয়মিত ফাস্টফুড খাওয়ার ফলে সুন্দর জীবন আগামীতে হয়ে যেতে পারে দুর্বিসহ।

পশ্চিমা দুনিয়ার মতো আমাদের দেশেও দিন দিন খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ফাস্টফুড। কিন্তু খোদ পশ্চিমেই ফাস্টফুড নিয়ে সমালোচনা চলছে দীর্ঘদিন ধরে। নিয়মিত ফাস্টফুড খেলে যেসব শারীরিক প্রতিক্রিয়া হতে পারে তা জানতে পড়ুন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট-এ প্রকাশিত নিক নাইটের এই প্রতিবেদন।

সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দৌড়ানোর এই দুনিয়ায় খুব শক্ত করেই শিকড় গেড়েছে ফাস্টফুড। আধুনিক জীবনযাপনে ফাস্টফুডের কদরের প্রধান তিন কারণ হলো, এটা দ্রুত, সহজ ও সস্তা। কিন্তু আমাদের শরীরে এর প্রতিক্রিয়াগুলো অতটা সহজ-সরল নয়।

এখন প্রায় সবাই-ই জানেন, ফাস্টফুড খেতে সুস্বাদু, কারণ এসব খাবার প্রচুর সুগার আর ফ্যাটে (শর্করা ও চর্বিজাতীয়) ঠাসা থাকে। বিশেষত বেশি পরিমাণ শর্করার ক্ষতি নিয়ে অনেকেই এখন উদ্বিগ্ন। শর্করার মাত্রা কমানোর প্রশ্নে এখন পশ্চিমা দুনিয়ায় বেশ হইচইও হচ্ছে। সেখানকার বিভিন্ন অধিকার আন্দোলনের কর্মীরা এবং গণমাধ্যমও এ নিয়ে ভালোই উচ্চকণ্ঠ। অনেকেই পারলে সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে ‘চিনির টুকরোর’ কুশপুতুল পোড়ান! অনেকে যত দ্রুত সম্ভব ‘সুগার ট্যাক্স’ বসানোরও দাবি তুলছেন। ফলে এই প্রতিবেদনে শর্করার চেয়ে ‘স্যাচুরেটেড ফ্যাট’ ও ‘ট্রান্স ফ্যাট’ নিয়েই আলোচনা করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত