প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সারাদেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ৩ জনের মৃত্যু

শাহীন খন্দকার : খুলনায় মাছুরা বেগম (২৫) নামে আরও এক ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মাছুরা যশোর জেলার অভয়নগর উপজেলার হাবিবুল্লাহর স্ত্রী। এ নিয়ে খুলনায় ডেঙ্গু জ্বরে নারী-শিশুসহ ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক শাহীন আক্তার জানান, গত ৭ অক্টোবর মাছুরা ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে খুমেক হাসপাতালে ভর্তি হন । বৃহস্পতিবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়।

চাঁদপুরে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে আব্দুল কাদের (১৩) নামের এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

চাঁদপুর শহরের জামতলা রোড এলাকার আমিন গাজীর ছেলে আব্দুল কাদের। সে শহরের একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কাজ করতো। স্বজনরা জানান, কয়েক দিন আগে আব্দুল কাদের জ্বরে আক্রান্ত হয়। মঙ্গলবার তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে বুধবার দুপুরে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোরে আব্দুল্লাহ মারা যায়।

চাঁদপুরের ২৫০ শয্যার সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আরএমও সুজাউদ্দৌলা রুবেল জানান, ‘আব্দুল কাদের আমাদের হাসপাতালের কাছেই একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে কাজ করতো। গত তিন-চার দিন ধরেই তার জ্বর ছিল। মঙ্গলবার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর বিনামূল্যে তার চিকিৎসা হয়েছে। পরের দিন অবস্থা খারাপ হওয়ায় আমরা নিজেদের পকেট থেকে টাকা দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে তাকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠাই।বৃহস্পতিবার সকালে তার মৃত্যুর খবরটি পাই।

এদিকে কুষ্টিয়ায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে পলান শেখ (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাত ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। নিহত পলান শেখ পেশায় রং মিস্ত্রী ছিলেন। তার বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার শেরকান্দি গ্রামে। তার বাবার নাম মেদ ধোনাই শেখ।

পলান শেখের ভাই হান্নান শেখ জানান, গত সোমবার হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠান। সেখানে বুধবার তাকে ডেঙ্গু পরীক্ষার কথা বলেন ডাক্তার।

শহরের আমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে ডেঙ্গু পরীক্ষায় তার ডেঙ্গু ধরা পড়ে। নিশ্চিত হওয়ার পর ডাক্তাররা তাকে হাসপাতালের ২ নং ওয়ার্ডে স্থানান্তর করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাত ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. তাপস কুমার সরকার। তিনি জানান, পলান শেখ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ডেঙ্গু পরীক্ষা করা হলে সে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেন চিকিৎসকরা । বুধবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মধ্য রাতে মৃত্যু হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ