প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ বললেন, আমরা ভুল অর্থনীতিতে চলছি

আসিফ হাসান কাজল : খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ বলেছেন, আমাদের দেশে বলা হয় ৭-৮% ভাগ উন্নয়ন হয়। হ্যাঁ সত্যিই হয়। এটা ঠিক। এইটা আমরা আপনারা কেউ পাই না। এই টাকা শতকরা মাত্র ৫ ভাগ লোক পাই। যে উন্নয়ন দেশের পাঁচ ভাগ মানুষের জন্য সে উন্নয়ন কখনোই জাতীয় উন্নয়ন না। এসময় তিনি বঙ্গবন্ধুর অর্থনীতিতে ফিরে আসার আহবান জানান।

মঙ্গলবার (২৮ মে) জাতীয় প্রেসক্লাব তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে একশন এইডের সহায়তায় খাদ্য অধিকার বাংলাদেশ আয়োজিত ‘ধানসহ কৃষিপণ্যের ন্যায্যমূল্য, চ্যালেঞ্জ ও করণীয়’ শীর্ষক এক জাতীয় সংলাপে তিনি এ কথা বলেন।

বৈষম্যহীন অর্থনীতির ব্যাপারে তিনি বলেন, আপনি বড় থাকবেন আমি ছোট থাকবো কিন্তু তফাতটা বেশি থাকবে না আপনি ১০ টাকা পেলে আমি ৬ টাকা অন্তত পাব এটাকেই বলে বই বৈষম্যহীন অর্থনীতি।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমাদের সংবিধানে সমাজতন্ত্র শব্দটি ছিল মেজর জিয়া উঠিয়ে দিয়েছিলেন আপনি ক্ষমতায় এসে আবার সমাজতন্ত্র শব্দটি যোগ করেছেন। আপনি কি বৈষম্যের সমাজে ফিরে আসতে চান আপনিতো গণতন্ত্রে অবস্থান করছেন। এটাকে সমাজতন্ত্র করেন না।

১৯৭৪ সালের সময় তুলে ধরে সাবেক কৃষি ব্যাংক চেয়ারম্যান বলেন, ওই সময় মানুষের কষ্ট ছিল, কিন্তু হিংসা ছিলনা। এখন খবর দেখলে দেখি আত্মহত্যা যখন সমাজে আত্মপ্রবঞ্চনা হয় হিংসা বৃদ্ধি পায় তখন এ ধরনের ঘটনা ঘটে। গরিবেরা আত্মহত্যা করে না। বঙ্গবন্ধুর সময়ে পারস্পারিক বৈষম্যের হার ছিল ০.২৪ ভাগ এখন তার ৭.৫ ভাগ। শুধু বাংলাদেশেই নয় পাশ্ববর্তী দেশ ভারত থাইল্যান্ড সিঙ্গাপুরেও একই অবস্থা।

বিশ্বের ধনী বৃদ্ধির হারে আমেরিকা বাংলাদেশের কাছে হার মেনেছে। চায়না হার মেনেছে এর থেকে কি আপনি পরিত্রান চান? আপনি তো বঙ্গবন্ধুর কন্যা আর কেউ হলে বলতাম না। দাবি আছে বলেই বলছি, আমি নিজ দায়িত্বে বলছি আমরা ভুল অর্থনীতিতে চলছি। বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা সংবিধানে বলে গেছেন আমরা অমান্য করছি। মান্য করলেই আমরা ভালো থাকবো।

‘খাদ্য অধিকার বাংলাদেশ’ ও ‘পিকেএসএফ’-এর চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সংলাপে সাবেক কৃষি সচিব আনোয়ার ফারুক, বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাবেক গবেষণা পরিচালক ড. মো. আসাদুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক, ড. সায়েমা হক বিদিশা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত