প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবির গুলিতে নিহতের ঘটনায় তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সুজন কৈরী : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে বিজিবি সদস্যদের গুলিতে তিনজন নিহতের ঘটনায় তদন্ত চলছে। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ কোস্টগার্ড সদর দফতরে বাহিনীটির ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠার পর নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে কোস্ট গার্ড দু-যুগের বেশি সময় অতিক্রম করেছে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাহিনীর সম্পদ ও জনবলের সীমাবদ্ধতার মাঝেও উপক‚লীয় এলাকায় জনগণের জানমাল রক্ষা, আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ এবং অবৈধ কর্মকাণ্ড দমনে অসামান্য সাফল্য অর্জন করেছে। বাহিনীর সদস্যদের সততা, দায়িত্ববোধ, ঐকান্তি প্রচেষ্টা ও কর্মদক্ষতার ফলে বর্তমানে উপক‚লীয় অঞ্চলে কোস্ট গার্ড একটি আস্থা ও নিরাপত্তার প্রতীকে পরিণত হয়েছে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলেও কোস্ট গার্ডের উপস্থিতি ও উজ্জল ভাবমূর্তি আমাদের সকলকে অনুপ্রাণিত করেছে।

তিনি আরো বলেন, ২০১১ সাল পর্যন্ত দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডের প্রাণকেন্দ্র চট্টগ্রাম বন্দরে দুষ্কৃতিকারী কর্তৃক ছিঁচকে চুরি ও ডাকাতি সংগঠিত হত। বিদেশি জাহাজগুলি এসব ঘটনাকে ভুলভাবে জলদস্যুতা হিসাবে ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম ব্যুরোর কাছে রিপোর্ট করতো। যার ফলে আইএমবি কর্তৃক চট্টগ্রাম বন্দরকে উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন বন্দর হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। এ কারণে বাণিজ্যিক জাহাজের ইন্স্যুরেন্স খরচ ছিল খুব বেশি। ২০১১-১২ সালে কোস্ট গার্ড বাহিনীর নিরলস প্রচেষ্টায় চট্টগ্রাম বন্দরে চুরি-ডাকাতি শূণ্যের কোঠায় নেমে আসে। আর এ তথাকথিত জলদস্যু মুক্ত করার মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দরকে নিরাপদ বন্দরে পরিণত করে দেশের বাণিজ্যিক কর্মকান্ডে ব্যাপক গতি সঞ্চার করেছে এ বাহিনী আইএমবি কর্তৃক স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪০ বছর পর সর্বপ্রথম চট্টগ্রামকে ঝুঁকিপূর্ণ সমুদ্র বন্দরের তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়। এর ফলে বন্দরে পণ্য পরিবহনের ইন্স্যুরেন্স খরচ ব্যাপকভাবে কমে এসেছে এবং বিশেষজ্ঞদের মতে শুধু ইন্স্যুরেন্স বাবদ হাজার কোটি টাকারও বেশি সাশ্রয় হয়েছে।

মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন, প্রধানমন্ত্রীর ভিশন অনুযায়ী সমুদ্র এলাকার অফুরন্ত সম্পদ ব্যবহার করে বøুু-ইকোনমিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এ বাহিনী কাজ করছে। দেশের উপক‚লীয় এলাকা দিয়ে অবৈধ অনুপ্রবেশ রোধ করতে কোস্টগার্ড কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে বাহিনীকে আধুনিক ও যুগোপযোগী করে গড়ে তোলার বিষয়ে আসাদুজ্জামান খান বলেন, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার আওতায় কোস্টগার্ডকে যুগোপযোগী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা চলছে। বাহিনীর সক্ষমতা বাড়াতে অল ওয়েদার ক্যাপাবল জাহাজ, হোভারক্রাফট, ড্রোন, হেলিকপ্টার ও মেরিটাইম পেট্রল এয়ারক্রাফটের মতো আধুনিক প্লাটফর্ম সংযোজনের পরিকল্পনা রয়েছে। এতে গভীর সমুদ্রে উদ্ধার তৎপরতা, চোরাচালান প্রতিরোধ ও সমুদ্র এলাকায় নজরদারি বাড়ানো সম্ভব হবে। বিশেষায়িত এ বাহিনীর পেশাগত ভিত্তি গড়ে তোলার জন্য নিজস্ব জনবল নিয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে।

অনুষ্ঠানে কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনীসহ বিভিন্ন বাহিনীর শীর্ষ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার অ্যাডমিরাল আশরাফুল হক।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী কোস্ট গার্ডের ৪০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বাহিনীর উন্নয়ন ও অপারেশনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সরকার প্রবর্তিত বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড পদক, প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড পদক, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড (সেবা) পদক ও প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড (সেবা) পদক বিতরন করেন। এর মধ্যে মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে অকুতোভয় অবদান, বীরত্ব বা সাহসিকতাপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ বর্তমান নৌ-বাহিনী প্রধান ও সাবেক কোস্ট গার্ড প্রধান রিয়ার এডমিরাল এ এম এম এম আওরঙ্গজেব চৌধুরী প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড পদকে ভূষিত হয়েছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত