প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডাকসু নির্বাচন ভালোয় ভালোয় সম্পন্ন হলে আশা করা যায় অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র সংসদ নির্বাচনেরও অর্গল খুলে যাবে : ড. মেসবাহউদ্দিন আহমেদ

নাঈমা জাবীন : শিক্ষাবিদ ও রাজনীতির বিশ্লেষক ড. মেসবাহউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, গণতন্ত্রের বিকাশে মুক্তবুদ্ধিচর্চার কোনো বিকল্প নেই। অথচ সিকি শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে মুক্তবুদ্ধিচর্চার সূতিকাগার ডাকসু, চাকসু, জাকসু, রাকসু, অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ও কলেজগুলোয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ, আবাসিক হল ও বিভাগগুলোয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন হয় না। ছাত্র সংসদ নির্বাচন ব্যাপারটি যখন সবাই প্রায় ভুলতে বসেছিলো, তখন দীর্ঘ ২৮ বছর পর সরকার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ‘ঢাকা ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাল স্টুডেন্ট ইউনিয়ন-ডাকসু’ নির্বাচনের প্রয়োজন অনুধাবন করে। আগামী ১১ মার্চ ২০১৯ ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। দীর্ঘদিন পর ডাকসু নির্বাচন এমনি এমনিই অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। এর জন্য সাধারণ ছাত্রদের আন্দোলন করতে হয়েছে, বিদ্যমান রাজনৈতিক দলগুলোর ছাত্র সংগঠনকে এগিয়ে আসতে হয়েছে, আইনি জটিলতা কাটিয়ে উঠতে হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সদিচ্ছা দেখাতে হয়েছে এবং সরকার সদিচ্ছা দেখিয়েছে। ১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন ভালোয় ভালোয় সম্পন্ন হলে আশা করা যায় অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র সংসদ নির্বাচনেরও অর্গল ভেঙে যাবে। সূত্র : সমকাল
তিনি আরও বলেন, কী কারণে দীর্ঘদিন ছাত্র সংসদ নির্বাচন বন্ধ ছিলো, তা অনুসন্ধানে গেলে অনেক কিছুই হয়তো বেরিয়ে আসবে। তবে মোটা দাগে বলা যায়, নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ছাত্র সংগঠনের নেতারা চান না ছাত্র সংসদ সচল হোক। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাত্র সংসদ সচল করে তাদের একতরফা সুবিধাভোগের পথে বাড়তি ঝামেলা চায় না বলেই হয়তো দিনের পর দিন ছাত্র সংসদ নির্বাচনকে নিরুৎসাহিত করে গেছে। অথচ এ সময়ে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ‘শিক্ষক সংসদ নির্বাচন’ কিন্তু ঠিকই অনুষ্ঠিত হয়েছে। শিক্ষকরা তাদের অধিকার আদায়ে গণতান্ত্রিক পন্থা অবলম্বন করলেও ছাত্রদের অধিকার আদায়ের পথটি করে রাখছিলেন রুদ্ধ। ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে এই রুদ্ধ দুয়ার খুলছে। এখন এই দুয়ার হবে অবারিত। বিদ্যমান রাজনৈতিক দলের ছাত্র সংগঠনের নেতারা যে কারণে ছাত্র সংসদ নির্বাচন চাচ্ছিলেন না, সে কারণটিও অগণতান্ত্রিক। রাজনীতি এখন চলে গেছে ব্যবসায়ীদের হাতে। যে যতো বড় ব্যবসায়ী, তিনি ততো বড় নেতা। রাজনৈতিক মনোভাব নিয়ে দেশসেবা আর ব্যবসায়িক মনোভাব নিয়ে দেশসেবার মধ্যে তফাৎ আছে। ছাত্র সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে যোগ্য রাজনৈতিক নেতা বেরিয়ে না আসায় রাজনীতি হয়ে গেছে কলুষিত। সুবিধাবাদী রাজনীতি প্রকট হয়েছে। টাকার বিনিময়ে নেতৃত্বের স্বাদ পাওয়ার প্রবণতা বাড়ছে। শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞানে-গরিমায় সমৃদ্ধ মানুষের রাজনীতিতে আগমনের ঝোঁক কমছে। শিক্ষার্থীরা প্রতিনিয়ত নানামুখী সমস্যার মুখোমুখি হয়। অপর্যাপ্ত পরিবহন, লাইব্রেরিতে বই সংকট, হলে সিট না পাওয়া, হল ক্যান্টিনে নিম্নমানের খাবার ইত্যাদি সমস্যা তাদের নিত্যসঙ্গী। ছাত্র সংসদ না থাকায় এসব সমস্যা কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরার কোনো মাধ্যম নেই সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের। সাধারণ শিক্ষার্থীদের কোনো প্ল্যাটফর্মে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই। নীতি নির্ধারণী পর্যায়েও শিক্ষার্থীদের কোনো প্রতিনিধি নেই। ফলে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা গত দুই যুগের বেশি সময় ধরে বঞ্চিত হচ্ছিলো তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে। এই দীর্ঘ সময়ে ছাত্র নামধারী নেতারা ছাত্রদের কল্যাণ করার পরিবর্তে নিজেদের আখের গোছানোয় ব্যস্ত ছিলো। চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, হল দখল, ফাও খাওয়াসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত ছিলো তারা। ছাত্র সংসদ সচল থাকলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র নামধারী বহিরাগতরা বিতাড়িত হতে বাধ্য হতো। ছাত্র রাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল সোনালি সেই অতীত আবার পুনরুদ্ধার হতো। রাষ্ট্র ও সমাজের সর্বস্তরে, বিশেষ করে রাজনৈতিক দল পরিচালনায় যোগ্য ও মেধাবী নেতৃত্বের যে সংকট চলছে, তা দূর হতো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত