প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারী : জন্ম যার আজন্ম পাপ!

ব্যারিস্টার ফারাহ খান : ‘নারী’ মানেই একটি ‘আপদ’, তাই যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব বিদায় করতে পারলেই যেন বাঁচে! সপ্তম/অষ্টম শ্রেণিতে পড়ছে কিংবা এসএসসি দিয়েছে, আর কতো? এখন বিয়ে না দিলে ‘ভালো’ ছেলে পাওয়া যাবে না, সমাজ কি বলবে, মেয়ের তো বয়স বেশি হয়ে যাচ্ছে, সন্তান হতে সমস্যা হবে, ঘর-সংসারে মন বসবে না, মেয়েটা হাত ছাড়া হয়ে যাবে ‘বখে’ যাবে (!) ইত্যাদি। কিন্তু এই আমরাই মেয়েটির বিয়ের পরে যখন ‘সন্তান-সম্ভবা’ হয় তখন মেয়ে/মহিলা ডাক্তার খুঁজি! পুরুষ ডাক্তার দেখানো তো দূরের কথা, সন্তান প্রসবে পুরুষ ডাক্তারের কোনো ভূমিকা থাকতে পারে এই কথাটি চিন্তা করলেই তো আমাদের কান গরম হয়ে যায়! কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো এখনো স্কুল পাস করেই ডাক্তার হয়েছে এমন কোনো সনদ আমাদের দেশে আছে বলে আমার জানা নেই।

হায় রে আমাদের কর্ম, হায় রে আমাদের চিন্তা! অন্যান্য পেশার উদাহরণ আর দিলাম না, যাদের মাথায় বিন্দুমাত্র ঘিলু আছে তাদের বোঝার জন্য এই একটি উদাহরণই মনে হয় যথেষ্ট।

এখনো যেই দেশে ‘নারী’কে ‘বোঝা’ মনে করা হয়, সেই দেশেরই একজন নারী আমি। আমার কপাল ভালো যে বাংলাদেশের একটি শিক্ষিত মার্জিত পরিবারে জন্মে ছিলাম তাই আমার ইচ্ছেগুলোকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। নয়তো আমিও আমার দেশের লাখ লাখ মেয়ের মতন কিছু বুঝার আগে কিশোরী বয়সেই সংসার-স্বামী-সন্তান-শশুরবাড়ি নিয়ে ব্যস্ত দিন কাটাতাম! ব্যারিস্টার হওয়া তো দূরে থাক, কোন ব্যারিস্টারের ‘পিয়ন’ও হতে পারতাম না স্কুল পাস করে… ব্যারিস্টার হওয়া সেই চাঁদে যাবার মতন স্বপ্নই থেকে যেতো!

প্রসংগত : ইউনিসেফের ২০১৭ সালের হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশে ৫২ শতাংশ মেয়ের বিয়ে হয় ১৮ বছর বয়স হবার আগেই। এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাল্যবিবাহের হার বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি। ফেসবুক থেকে

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত