প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমাদের সমাজে নারী-পুরুষের স্বাভাবিক সম্পর্কের অভাব মারাত্মক

লীনা পারভীন : ‘প্রেম’ মানে এই না যে আপনি একজন আরেকজনের কাছে সারাজীবনের জন্য বাঁধা পড়ে গেলেন। তবে প্রেমে যদি ‘দায়’ নয় দায়বদ্ধতা ও স্বচ্ছতা না থাকে তাহলে সেটাকে প্রেম না বলাই ভালো। দুজন মানুষ যেকোনো বয়সেই যেকোনো কারণেই আকৃষ্ট হতে পারে বা কাছাকাছি আসতেই পারে আর এটা সায়েন্টিফিক্যালি অস্বাভাবিক কিছু না বলেই মনে হয়। তবে যেকোনো সম্পর্কে মাঝে যদি দায়িত্ববোধ না থাকে, তাহলে সেখানেই ঝামেলা নেমে আসে। প্রেম করেছেন বলেই তাকে পেতে হবে বা বিয়ে করতে হবে এমন মাথার দিব্যি দেয়ার দিন শেষ। মানুষের মন এক বিচিত্র প্রাণী। সে কখন কিসে আনন্দ পায় বলা যায় না। একসাথে অনেকের সাথে ভালোলাগা তৈরি হতেই পারে তবে সেখানে বুঝতে হবে কারণটা কী? একজন মানুষ একসাথে অনেক জনের দিকে আকৃষ্ট হওয়াটাকে অস্বাভাবিক মানসিক গঠন বলেই মনে হয়। যদি আপনি দেখেন আপনার সঙ্গীটি সেই অস্বাভাবিক রোগে আক্রান্ত তাহলে হয় তাকে সুস্থ করতে সাহায্য করুন না হয় ত্যাগ করুন। চট্টগ্রামের যে ঘটনাটি সেখানে দুজনকেই আমার মানসিকভাবে অসুস্থ বলে মনে হয়েছে। যেকোনো ঘটনার অন্তরালে অনেক ঘটনা থাকে তাই এর ফলাফল দেখে বা কার্যকারণ না জেনে কোনো সঠিক সিদ্ধান্তে আসাটাও একধরনের ভুল। ছেলেটি জানতো মেয়েটির অসুস্থতার কথা এবং সে একজন ডাক্তার। তাই বিয়ের কার্ড ছাপানো হয়ে গেছে বলেই সে বিয়ে করতে হবে এমন অনাধুনিক মানুষ তিনি হলেন কেন, জানা নেই। একজন ডাক্তার হিসেবে তাকে আরও অনেক বেশি ক্যালকুলেটিভ হওয়াটাই কাম্য। তাছাড়া, একজন মানুষের অস্বাভাবিকতা হঠাৎ করে বেরিয়ে আসে না। সেটা সম্পর্কের মাঝেই টের পাওয়া যায়। তাই দুজন অসুস্থ মানুষ নিজেদের মাঝে অসুস্থ সম্পর্ক গড়তে চেয়েছিলো যাকে বিশ্লেষণ করতে গিয়ে কে দোষী আর কে নয়, সেই সরলীকরণে যাওয়া কতোটা সঠিক, জানা নেই। তবে, এটি একটি কেইস স্টাডি হতেই পারে। আমাদের সমাজে নারী পুরুষের স্বাভাবিক সম্পর্কের অভাব মারাত্মক। আমরা কেউ কারও বন্ধু নই, প্রভু হতে চাই। একে অপরের প্রয়োজনগুলোকে ইগেনোর করে বেঁচে থাকতে চাই যা এই কালে প্রায় অসম্ভব। নিজেদের চাহিদাগুলোকে বুঝতে পারিনা বা বুঝতে চাইনা বলে গ্যাপ আসে। সেখানে আসে নতুন বায়ু। নতুন আশা, ভরসা। ফেসবুক থেকে

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত