প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির ফল প্রকাশ
কাল পাঠ্যপুস্তক উৎসবের উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

তরিকুল ইসলাম সুমন : পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক ও ইবতেদায়ির শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) এবং অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার ফলাফল আগামীকাল প্রকাশিত হবে। এদিন সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলর কপি উপস্থাপন করবেন দু’মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। পাশাপশি একই দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের শিক্ষার্থীদের জন্য মুদ্রণকৃত বিনামূল্যের বই বিতরণ উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। একাদশ জাতীয় নির্বাচনের কারণে এ অনুষ্ঠান ৩০ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ২৪ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে।

পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির এই সমাপনী পরীক্ষায় এবার প্রায় ৫৭ লাখ শিক্ষার্থী অংশ নেয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত ১৮ নভেম্বর শুরু হয়ে প্রাথমিক শিক্ষা ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শেষ হয় ২৬ নভেম্বর। ছয়টি বিষয়ের প্রতিটিতে ১০০ করে মোট ৬০০ নম্বরের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এবার পরীক্ষার বহুনির্বাচনী প্রশ্ন (এমসিকিউ) বাদ দেওয়া হয়।

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনীতে এ বছর ৩০ লাখ ৯৫ হাজার ১২৩ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে প্রাথমিক সমাপনীতে ২৭ লাখ ৭৭ হাজার ২৭০ জন। আর ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ৩ লাখ ১৭ হাজার ৮৫৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

অপরদিকে অষ্টম শ্রেণির জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা ১ নভেম্বর শুরু হয়ে শেষ হয় ১৫ নভেম্বর। সারা দেশে এবার ২৬ লাখ ৭০ হাজার ৩৩৩ জন শিক্ষার্থী অংশে নেয়। আট বোর্ডের অধীনে জেএসসিতে ২২ লাখ ৬৭ হাজার ৩৪৩ জন এবং মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসিতে ৪ লাখ ২ হাজার ৯৯০ জন পরীক্ষা দেয়।

এর আগে প্রাথমিক শিক্ষা ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের জন্য ২৬ থেকে ২৭ ডিসেম্বর এবং জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফলাফল ২৫-২৭ ডিসেম্বর বা সুবিধাজনক সময়ের মধ্যে প্রকাশের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে অনুরোধ প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ২৪ ডিসেম্বর ফল প্রকাশের জন্য সময় দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়। গত কয়েক বছর ধরে একই দিন দুই সামপনী পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছিল।

ফলাফল প্রকাশের রেওয়াজ অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রীর হাতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রী কর্মকর্তাদের নিয়ে ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেবেন। এরপর সংবাদ সম্মেলন করে দুই মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিক ফল প্রকাশ করবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব নাজমুল হক খান বলেন, আগামী ২৪ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী বই উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। আর ১ জানুয়ারি শিক্ষা সচিব মো. সোহরাব হোসাইন সারাদেশে একযোগে বই উৎসবের উদ্বোধন করবেন। শিক্ষামন্ত্রী যদি উৎসবের দিন অংশ নিতে না পারেন তাহলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব বই উৎসবের উদ্বোধন করবেন।

অপরদিকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) চেয়ারম্যান প্রফেসর নারায়ণ চন্দ্র সাহা এই প্রতিবেদককে বলেন, দেশে বই উৎসব যথা সময়ে আয়োজন করা হবে। ২০১৯ শিক্ষাবর্ষের সারাদেশের চার কোটি ২৬ লাখ ১৯ হাজার ৮৬৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য ৩৫ কোটি ২২ লাখ কপি বিনামূল্যের পাঠ্যবই ছাপার কাজ শতভাগ শেষ হয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত