প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কমছে উৎপাদন, বাড়ছে গমের আমদানি নির্ভরতা

মতিনুজ্জামান মিটু : উচ্চফলনশীল জাত এবং প্রযুক্তির উৎকর্ষতায় ফলন বাড়লেও চলতি মৌসুমে দেশে কমছে গমের উৎপাদন, বাড়ছে আমদানি নির্ভরতা। অসময়ের বৃষ্টি এবং চাষের জমি কমায় এবছর অর্থাৎ ২০১৭-২০১৮ মৌসুমে গমের উৎপাদন কমবে। তাই দেশের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পুরণের জন্য আগের চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণে গম আমদানি করতে হবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর(ডিএই) ও বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) এর ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সমন্বয় করা হিসেবে জানা যায়, ২০১৭-১৮ মৌসুমে দেশে গম চাষের জমি কমে ৩.৫২২ লাখ হেক্টরে দাঁড়ায়। এই মৌসুমে দেশে গম চাষের জমির লক্ষ্যমাত্রা ৪ লাখ হেক্টর নির্ধারণ করা হয়েছিল। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে ৪.১৫৩ লাখ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছিল। এবছর লক্ষমাত্রা ছিল ৪.৬২০ লাখ হেক্টর। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৪.৪৫০ লাখ হেক্টরে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ হয়েছিল।

বারি (বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট)’র গম গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক ড. নরেশ চন্দ্র দেব বর্মা বলেন, গম দেশের দ্বিতীয় প্রধান ফসলের স্থান পেয়েছে। খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের সঙ্গে বাড়ছে গমের ব্যবহার। বর্তমানে দেশে গমের গড় উৎপাদন প্রায় ১৪ লাখ মেট্রিক টন। এখানকার মানুষের চাহিদা প্রায় ৭০ লাখ মেট্রিক টন। ডিএই এর হিসেবে গত বছর ৫৬ লাখ মেট্রিক টন গম আমদানি করা হয়েছে।

এবছর আরও অনেক বেশি পরিমাণ গম আমদানি হবে। উচ্চফলনশীল জাত এবং প্রযুক্তি অনেক উন্নতি হয়েছে, হেক্টর প্রতি ফলনও বেড়েছে। বারি এ যাবত ৩৩টি উন্নত গমের জাত এবং ২টি ট্রিটিকেলী জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। এর মধ্যে ২০১৭ সালে বারি গম-৩১, বারি গম – ৩২ ও বারি গম- ৩৩ অবমুক্ত হয়। উন্নত উৎপাদন প্রযুক্তি, লবনাক্ততামুক্ত ও তাপ সহিষ্ণু জাত উদ্ভাবনে উৎপাদন বেড়ে ১৪ লাখ মেট্রিক টনে উন্নিত হয়। ১৯৭২ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে গমের হেক্টরপ্রতি গড় ফলন প্রায় ২৩৮ ভাগ বেড়েছে। যা একটি মাইলফলক। কিন্তু বর্তমানে বাজারে চালের বাড়তি দামের কারণে গমের আবাদ হুমকির মুখে পড়েছে। ফলন বাড়িয়েও বোরোসহ অন্যান্য ফসলের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে পিছিয়ে পড়ছে গম। কমছে গমের জমি।

তবে উন্নত প্রযুক্তি, লবনাক্ততা মুক্ত ও তাপ সহিষ্ণু জাতের ব্যবহারে গমের গড় ফলন বাড়ছে। সত্তর দশকের দিকে বাংলাদেশে খেরী, আই পি-৫২, আই পি-১২৫ ইত্যাদি নামের কিছু কম উৎপাদনশীল গমের জাত খুবই সীমিত আকারে আবাদ হতো। ১৯৭১-৭২ মৌসুমে ১ লাখ ২৬ হাজার হেক্টর জমির গমের আবাদে উৎপাদন হয় মাত্র ১ লাখ ১৩ হাজার মেট্রিক টন। স্বাধীনতার পর কল্যানসোনা ও সোনালিকার জাতের বীজ আমদানির মাধ্যমে দেশে গমের আবাদ স¤প্রসারণের কাজ শুরু হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত