প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারত-রাশিয়া ‘এস-৪০০ এয়ার-ডিফেন্স’ চুক্তি ভেস্তে গেছে

মাছুম বিল্লাহ : রাশিয়ার কাছ থেকে চীন এস-৪০০ এয়ার ডিফেন্স মিসাইল সিস্টেম-এর চালান গ্রহণ করছে বলে খবর প্রকাশিত হয় এ মাসেই। পাশপাশি আরেকটি খবর বের হয়, রাশিয়ার কাছ থেকে ৫ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি মূল্যে দূর-পাল্লার ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য এস-৪০০ ত্রিয়াম্ফ ক্ষেপনাস্ত্র কেনার চুক্তি চূড়ান্ত করার জন্য আলোচনা শুরু করেছে ভারত। কিন্তু এই রাশিয়ার সঙ্গে ভারতের ওই আলোচনা ভেস্তে গেছে।

ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন শীর্ষ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ডিফেন্সনিউজ.কম জানায়, দাম, প্রশিক্ষণ, সার্ভিস সাপোর্ট এবং ক্ষেপনাস্ত্র প্রযুক্তি স্থানান্তরের ব্যাপরে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, রাশিয়ার অস্ত্র রফতানিকারক সংস্থা রোজোবোরোনেক্সপোর্ট এবং মূল প্রস্তুতকারক ও ডিজাইনার আলমাজ-আনতে’র কর্মকর্তারা কোন নিস্পত্তিতে উপনীত হতে ব্যর্থ হয়েছেন।

সার্ভিস এবং খুচরা যন্ত্রাংশের ব্যাপারে রাশিয়ার পক্ষ থেকে কোন প্রস্তাব দেয়া হয়নি উল্লেখ করে ওই কর্মকর্তা বলেন, পাঁচটি এস-৪০০ ইউনিটের জন্য রাশিয়া ৫.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার চাচ্ছে। তাছাড়া অত্যন্ত চড়া প্রশিক্ষণ ফি দাবির পাশাপাশি তিন ধরনের গাইডেড মিসাইলের প্রযুক্তি স্থানান্তর করবে না বলেও জানিয়ে দিয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের আরেক কর্মকর্তা জানান যে রাশিয়ার কাছ থেকে এস-৪০০ কেনার ব্যাপারে শিগগিরই কোন চূড়ান্ত চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই সিস্টেমের জন্য ভারত ৪.৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি দিতে রাজি নয়। তিনি জানান যে এই চুক্তিকে খুচরা যন্ত্রাংশ, গাইডেড মিসাইল, এবং লাইফ-টাইম সার্ভিস প্যাকেজ প্রশ্নে ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ নীতির আওতায় আসতে হবে।

এ ব্যাপারে রোজোবোরোনেক্সপোর্ট-এর মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

২০১৬ সালের অক্টোবরে গোয়ায় অনুষ্ঠিত দ্বিপক্ষীয় সম্মেলনে ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে এস-৪০০ সিস্টেম কেনার ব্যাপারে আন্ত:সরকার চুক্তি হয়। চুক্তি সই অনুষ্ঠানে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সর্বোচ্চ ক্রয় কমিটি-ডিফেন্স একুইজিশন কাউন্সিল ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে পাঁচটি এস-৪০০ সিস্টেম কেনার জন্য ৪.৫ বিলিয়ন ডলার অনুমোদন করে।

ভারতীয় বিমানবাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেন, এই ক্ষেপনাস্ত্র পরিচালনার জন্য গত বছর দুই দফায় ভারতীয় সেনা সদস্যরা রাশিয়ায় গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। কিন্তু এস-৪০০ ত্রিয়াম্ফ সিস্টেম বাহিনীতে সংযোজনের আগে এগুলো ভালোভাবে পরিচালনার জন্য ভারতীয় সেনাদের ব্যাপক প্রশিক্ষণ নিতে হবে।

রাশিয়ার তৈরি ত্রিয়াম্ফ ক্ষেপনাস্ত্র ৪০০ কিলোমিটার দূর থেকে আকাশ পথে আসা কোন টার্গেট বাধাদান ও ধ্বংস করতে সক্ষম। এটি একই সঙ্গে ছয়টি টার্গেটে আঘাত হানতে পারে। প্রতিটি এস-৪০০-এ রয়েছে ট্রাকিং এন্ড সার্চ রাডার সিস্টেম, ৮টি ল্যান্সার, ১১২টি গাইডেড মিসাইল, এবং কমান্ড এন্ড সাপোর্ট ভেহিকেল।

ভারতীয় বিমানবাহিনীর আরেক কর্মকর্তা জানান যে, এস-৪০০ ক্ষেপনাস্ত্র দিয়ে ব্যালিস্টিক মিসাইল ও স্টিলথ এয়ারক্রাফট প্রতিহত করা যাবে। এই সিস্টেমে তিন ধরনের গাইডেড মিসাইল রয়েছে।

ভারত এস-৪০০ পেলে বিমান প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে সহজেই পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে যেতে পারবে এবং চীনের সঙ্গে পাল্লা দিতে পারবে বলেও মনে করেন তিনি। চুক্তি করতে পারলে চীনের পর ভারতই হবে এস-৪০০ সিস্টেমের দ্বিতীয় ক্রেতা।-সাউথ এশিয়ান মনিটর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত