প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মিয়ানমার সরকারের বিলম্ব করার কৌশল!

মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক : বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদেরকে আগামি মঙ্গলবার থেকে মিয়ানমার ফেরত নেওয়া শুরু করবে। বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী রোহিঙ্গা প্রতিদিন ৩০০ করে সপ্তাহে দেড় হাজার রোহিঙ্গাকে ফেরত নিবে মিয়ানমার। রোহিঙ্গা ফেরত নেয়ার প্রক্রিয়াটি শুরু হলে ৩ দিন বা ৫ দিন গেলে বোঝা যাবে যে এটি বাস্তব সম্মত কি-না। আপাত দৃষ্টিতে এটি অবাস্তব পরিকল্পনা ৩০০ করে রোহিঙ্গা ফেরত নেওয়া। এই প্রক্রিয়ায় ১ যুগ চলে যাবে আমাদের দেশে আসা রোহিঙ্গা ফেরত নিতে। মিয়ানমার সরকার দিনে ৩০০ করে ে রোহিঙ্গা ফেরত নিবে বলেছেন।

কিন্তু এর মধ্যে আবার ২০০ জন করে রোহিঙ্গা আমাদের দেশে জন্ম গ্রহণ করবে। তাহলে এ প্রক্রিয়াটি এমন একটি প্রক্রিয়া, এটি যেন সম্পুর্ণভাবে কার্যকর না হয়, এ থেকে বোঝা যায়। মিয়ানমার সরকার বিলম্ব করার কৌশল বের করেছেন। আমরা আশা করব, আমাদের সরকার এবং মিয়ানমারের সরকার এই পরিকল্পনাকে পুণরায় মূল্যায়ন করবেন। মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারলাম, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের প্রতিনিধিগণ পরামর্শ সভা করেছেন বা যোগাযোগের প্রক্রিয়া করেছেন এবং তারা কতগুলো শর্ত আরোপ করেছেন, তারা পরিপুর্ণ না হলে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেওয়ার জন্য পরিপূর্ণ ভাবে কাজ করবে না।

তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য যে, যারা যে যে গ্রাম থেকে এসেছিল তাদের সেই গ্রামে ফেরত দিতে হবে এবং তাদের সম্পদ সহ ফেরত দিতে হবে। তারা গ্রামে ফেরত যাওয়ার পর যদি তাদের ঘর বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়, তাহলে সেটিতে মিয়ানমার সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে। আমি মনে করি, আমাদের দেশে আসা রোহিঙ্গাদেরকে যেন জোর করে ফেরত পাঠানো না হয় এবং আন্তর্জাতিক মহলে চাপ দিয়ে তাদের নাগরিত্ব দিয়ে ফেরত ফেরত পাঠানো হয়।

পরিচিতি: নিরাপত্তা বিশ্লেসক ও চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি
মতামত গ্রহণ: রাশিদুল ইসলাম মাহিন
সম্পাদনা: মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত