শিরোনাম
◈ রাইসির নিখোঁজ নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতিক্রিয়া ◈ দেশের ৫ অঞ্চলে ৮০ কিমি বেগে ঝড়ের আভাস ◈ রাইসিকে বহনকারী বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারটি যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ◈ রাইসির হেলিকপ্টারের অবস্থান শনাক্ত, উদ্ধারে সহযোগিতা করবে বিভিন্ন দেশ ◈ আবারও বাড়লো স্বর্ণের দাম, ভ‌রি এক লাখ ১৯ হাজার ৫শ টাকা ◈ রাইসির মৃত্যু হলে দায়িত্ব পাবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট, ৫০ দিনের মধ্যে নির্বাচন ◈ পুলিশকে স্মার্ট বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে: আইজিপি ◈ ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসিকে বহনকারী হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার  ◈ বিএনপির নেতাকর্মীদের কারাগারে পাঠানো সরকারের প্রধান কর্মসূচি: মির্জা ফখরুল ◈ উপজেলায় ভোট কম পড়ার বড় কারণ বিএনপির ভোট বর্জন: ইসি আলমগীর 

প্রকাশিত : ০৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১১:৩০ দুপুর
আপডেট : ০৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ০১:০১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

অর্থকেলেংকারীর অভিযোগ থেকে ইলন মাস্ককে অব্যাহতি  

ইলন মাস্ক

জাফর খান: বিশ্বের দ্বিতীয় ধনী হিসেবে পরিচিত বৈদ্যুতিক মোটর গাড়ী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ‘টেসলা’ ও টূইটারের মালিক ইলন মাস্ককে অর্থকেলেংকারীর সাথে জড়িতের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

২০১৮ সালের আগষ্টে মাস্কের বিরুদ্ধে শেয়ারহোল্ডাররা অভিযোগ আনেন যে, তার বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্যের কারনে বিলিয়ন ডলারের ক্ষতিতে পড়েছে তারা। এমনকি ৭২ বিলিয়ন ডলারের ( ৬০ বিলিয়ন পাউন্ড) বিনিময়ে কেনার প্রস্তাবটিতে তিনি জালিয়াতি করেছেন বলেও অভিযোগ আনেন তারা।এই জালিয়াতি যদি প্রমানিত হয় তবে ইলনকে বিলিয়ন ডলারের ওপরে ক্ষতিপূরন দিতে হবে দাবী করে অভিযোগ দায়ের করা হয় আদালতে। বিবিসি
 
নয় ঘণ্টার শুনানী শেষে শুক্রবার দুপুরে আদলত তাকে অব্যাহতি দেয়। এর আগে মাস্ক সুবিচারেরে আশায় সান ফ্রানন্সিস্কো আদালত থেকে পরিবর্তন করে মামলাটি টেক্সাসে নিয়ে আসেন। টেসলার সদর দপ্তরটিও এই রাজ্যে অবস্থিত। ২০২২২ সালের অক্টোবরে মাস্ক এক টুইট বার্তায় বলেন, ৪৪ বিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে তিনি কোম্পানিটি কিনেছেন। ২০১৮ এর আগষ্টে করা  টুইটের পরেই তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে শেয়ারহোল্ডারগন। সেসময় মাস্ক লিখেন, ‘টেসলায় যারা বিনিয়োগ করছেন তারা সবাই নিরাপদে আছেন।‘আর এই প্রেক্ষিতে মামলার বাদী তার অভিযোগে উল্লেখ করেন, মাস্ক মিথ্যা বলে সবাইকে প্রলুব্ধ করেছেন। 

এই টুইটের ফলে স্টকের দর বাড়লেও একদিনের মধ্যেই সূচক নিচে চলে গেলে বিনিয়োগকারীরা ১২ বিলিয়ন ডলার খুইয়েছেন। আরো উল্লেখ করা হয়, শেয়ার কেন-বেচার এক দোলাচলে পড়ে যায় বিনিয়োগকারীরা মাস্কের এমন হঠকারিমূলক বার্তা প্রকাশ্যে আসার কারনে। 

যুক্তরাষ্ট্রের সিজিউরিটিজ এন্ড স্টক এক্সচেঞ্জ কমিশনও মাস্কের বিরুদ্ধে মিথ্যা বক্তব্যের কারনে মামলা দায়ের করে। পরে ২০ মিলিয়ন ডলারের বিনিময়ে কোম্পানি কেনার বিষয়টি স্বীকার করে নেন তিনি। 

অবশ্য মাস্ক তিন সপ্তাহব্যাপী চলা শুনানির সময়ে বলেন, সৌদি থেকে বিনিয়োগ পাবার আশায় তিনি এমন ঘোষণা দিয়েছিলেন।এসময় তিনি প্রায় নয় ঘন্টা ধরে সাক্ষী হিসেবে দাঁড়িয়ে তার বক্তব্য দেন। 

জেকেএইচ/এসএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়