শিরোনাম
◈ এ সংঘর্ষ কোনভাবেই কাম্য নয়, দোষীদের বিচারের দাবি করছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ◈ খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াতে দলীয় নেতা-কর্মী ও বিত্তবানদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ◈ ৬ দিন বন্ধের পর ফের চালু ইন্টারনেট ◈ বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীর নাশকতার ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার তথ্য মিলেছে: ডিবির হারুন ◈ চার জেলায় কারফিউ চলবে, অন্যগুলোর সিদ্ধান্ত জেলা প্রশাসনের ◈ চট্টগ্রাম এবং বরিশালে স্বল্প পরিসরে যাত্রীবাহী বাস চলাচল শুরু ◈ অফিস খোলা থাকবে আগামীকাল বুধবার ও বৃহস্পতিবার, কারফিউর মেয়াদ বাড়লো ◈ অগ্রাধিকারভিত্তিতে বাছাইকৃত এলাকায় চালু করা হবে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট : জুনাইদ আহমেদ পলক ◈ নরসিংদীতে জেল পালানো কয়েদি আত্মসমর্পণের জন্য জড়ো হয়েছেন প্রায় একশোর মত ◈ আপিল বিভাগের রায় অনুযায়ী কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার

প্রকাশিত : ০৮ জুলাই, ২০২৪, ০৬:২৬ বিকাল
আপডেট : ০৮ জুলাই, ২০২৪, ০৬:২৬ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

স্মার্টফোনে সবচেয়ে বেশি আসক্ত ২৪ দেশের মানুষ

শিমুল চৌধুরী ধ্রুব: [২] ফোন ছাড়া এক মুহূর্ত থাকতে পারে না আজকের প্রজন্ম। তবে এই নেশায় কাবু শুধু ছোটরা নয়, বড়রাও। আট থেকে আশি সকলের হাতে একটা জিনিস খুবই কমন, সেটি হল স্মার্টফোন। বিশ্বে এমন কিছু দেশ আছে, যে দেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি স্মার্টফোনে আসক্ত। সম্প্রতি ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় এমন কিছু দেশের নাম উঠে এসেছে। সূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া

[৩] এই গবেষণায় স্মার্টফোনে সব থেকে বেশি আসক্তির তালিকায় ২৪টি দেশের জনগনের কথা বলা হয়েছে। দেশগুলো হলো, চীন, সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, ব্রাজিল, দক্ষিণ কোরিয়া, ইরান, কানাডা, তুরস্ক, ইজিপ্ট, নেপাল, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, ইজরায়েল, সার্বিয়া, জাপান, ব্রিটেন, ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রোমানিয়া, নাইজেরিয়া, বেলজিয়াম, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স ও জার্মানি।

[৪] এর মধ্যে প্রথম দশ দেশে স্মার্টফোন ব্যবহার করা হয় সবথেকে বেশি। উক্ত রিপোর্ট অনুযায়ী, চীনে মোবাইল ডিভাইস ও তার ব্যবহারকারীর সংখ্যা সবার থেকে বেশি। তা হওয়ার অন্যতম কারণ তাদের জনসংখ্যা এবং সেখানকার ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের বাজার।

[৫] দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে সৌদি আরব। বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশগুলোর মধ্যে একটি সৌদি আরব। এখানেও স্মার্টফোন ব্যবহারের সংখ্যা বাকি দেশের থেকে অনেক বেশি। প্রথম তিনটি দেশই এশিয়ার হওয়ায় স্পষ্টতই বোঝা যায়, ইউরোপ এবং আমেরিকার থেকে বেশি স্মার্টফোন ব্যবহার হয় এই মহাদেশে।

[৬] আরেকটি পরিসংখ্যান বলছে, আমেরিকায় ৯৭ শতাংশ নাগরিকের কাছে মোবাইল বা মোবাইলের মতো ডিভাইস রয়েছে। প্রতি ৫ আমেরিকান নাগরিকদের মধ্যে একজনের কাছে রয়েছে স্মার্টফোন ও ইন্টারনেট কানেকশন।

[৭] স্লিকটেক্সটের রিপোর্ট অনুযায়ী, বিশ্বে ৪৮ শতাংশ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী চিন্তায় পড়ে যান, যখন তাদের ফোনের ব্যাটারি ২০ শতাংশ বা তার নীচে নেমে যায়। যাকে নাম দেওয়া হয়েছে মনোফোবিয়া। ইন্টারনেট বা মোবাইল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার যে ভয়, তাকেই বলা হয় মনোফোবিয়া।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়