শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২, ০৩:২৭ দুপুর
আপডেট : ০৮ ডিসেম্বর, ২০২২, ০৫:৫৭ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ, নিহত ১

সংঘর্ষ

মাসুদ আলম: রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে  মকবুল হোসেন নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। বুধবার বিকেলে মুমূর্ষু অবস্থায় মকবুলকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। তিনি পল্লবী থানার ৫ নং ওয়ার্ড  স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন।  এ ঘটনায় পুলিশসহ আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক।
 
এদিকে পুলিশ দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ ৩০ থেকে ৪০ জন নেতাকর্মীকে আটক করে।  এর মধ্যে বিএনপির ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আব্দুস সালাম, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহবায়ক আমান উল্লাহ আমান, দলটির যুগ্ম মহাসচিব খাইরুল কবির খোকন, দলটির কেন্দ্রীয়  প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী ও সদস্য আব্দুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলকে আটক করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকাল থেকেই নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দলটির নেতা-কর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। একপর্যায়ে জমায়েত বড় হয়ে রাস্তার এক পাশ বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। পুলিশ তাদের সরিয়ে দিতে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া শুরু হয়। সংঘর্ষের একপর্যায়ে পুলিশ রবার বুলেট ও টিয়ার শেল ছুড়ে। এসময় বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। রাস্তায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে এবং লাঠিছোঁটা নিয়ে বিক্ষোভ করে। এতে করে ওই এলাকায় সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানায়, পরে পুলিশ বিএনপির নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়ে কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন। বেলা সোয়া চারটায় পুলিশের একটি দল বিএনপির কার্যালয়ে প্রবেশ করে। এ সময় জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে হেলমেট পরিহিত ৩০ থেকে ৪০ জনের একটি মিছিল বের করে। সাড়ে চারটায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভেতরে ঢুকতে গেলেও পুলিশ ঢুকতে দেয়নি। পরে প্রায় ২০ মিনিট পর তাকে কার্যালয়ে ঢোকার অনুমতি দেয় পুলিশ। তবে তিনি কার্যালয়ে না ঢুকে সামনেই বসে পড়েছেন।

মতিঝিল বিভাগের ডিসি হায়াতুল ইসলাম খান বলেন, সমাবেশের স্থান নিয়ে যখন আলোচনা চলছে, তখন এই সংঘর্ষ শুরু হয়। নেতা-কর্মীদের ভিড়ে  পুরো রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। আমরা তাদের সরে যেতে বারবার অনুরোধ করি। কিন্তু তারা আমাদের কথা শোনেনি। একপর্যায়ে তাদের সরিয়ে দিতে গেলে তারা পুলিশের ওপর হামলা করে।

এমএ/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়