শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৫:৫৭ বিকাল
আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৫:৫৭ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

মণিপুর সহিংসতায় নিহত ২১৯, রাজস্ব ক্ষতি ৮০০ কোটি রুপির 

ইমরুল শাহেদ: [৩] বুধবার এ তথ্য জানিয়েছেন গভর্নর অনুসুইয়া উইকে। তিনি উল্লেখ করেন, ২০২৩ সালের মে মাস থেকে এ পর্যন্ত - নয় মাসে হাজার হাজার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে এবং অনেকের জীবন ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস 

[৪] উইকে বলেছেন, সংহিসতার কারণে রাজ্যের প্রায় এক লাখ ৮৭ হাজার ১৪৩ জনকে আটক করা হয়েছে এবং পরে বৈধ আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের অনেককেই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। 

[৫] কর্মকর্তারা বলছেন, মাসের পর মাস কুকি ও মেইতিদের মধ্যে গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্ব সন্ত্রাসীদের জন্য সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। এতে উদ্বেগ বাড়ছে। কিন্তু সহিংসতা থামার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না।

[৬] ১২তম মণিপুর অ্যাসেম্বলির পঞ্চম অধিবেশনে বক্তৃতায় উইকে রাজ্যটিতে শান্তি ফেরানো, পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে তোলা, অর্থনীতির উপর সহিংসতার প্রভাব নিয়ে কথা বলেছেন। 

[৭] তিনি বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনক হলো সহিংসতায় ২১৯ জন প্রাণ হারিয়েছে। যারা মারা গেছেন খোঁজ-খবর নিয়ে তাদের পরিবারকে ১০ লাখ রুপি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে। পরিবারের কাছে মরদেহও হস্তান্তর করা হয়েছে।’

[৮] উইকে অধিবেশনে জানান, রাজ্যটিতে কেন্দ্রীয় সরকারের ১৯৮ কোম্পানি সশস্ত্র পুলিশ ফোর্স ও ১৪০ কলাম সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। সন্ত্রাসীরা যেসব অস্ত্র ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছিল তার বেশির ভাগই নিয়মিত তল্লাশির মাধ্যমে উদ্ধার করা হয়েছে। 

[৯] তিনি বলেন, ‘স্বচ্ছ ও স্বাধীন তদন্তের জন্য ২৯টি মামলা সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (সিবিআই) দেওয়া হয়েছে এবং একটি মামলা দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশনকে (এনআইএ)। আরো চারটি মামলা সিবিআইকে এবং পাঁচটি এনআইএ-কে দেওয়া হবে বলে তিনি জানান। সম্পাদনা: ইকবাল খান

আইএস/আইকে/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়