শিরোনাম
◈ ভারত- বাংলাদেশের সম্পর্কের শেকড় অনেক গভীরে:কোলকাতায় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ◈ বেইলি রোডে কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৮ ইউনিট ◈ ১৫৭ বিদেশি বন্দিকে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে হাইকোর্টের নির্দেশ ◈ শুক্রবার কমছে সয়াবিন তেলের দাম ◈ ইসরায়েলি হত্যাযজ্ঞে চুপ থেকে বিএনপি-জামায়াত গাজায় গণহত্যার পক্ষে অবস্থান নিয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘেরও ১৫ বছর আগে শিশু আইন প্রণয়ন করেন: আইনমন্ত্রী  ◈ বিপিএলের ফাইনাল ম্যাচের সময় চূড়ান্ত করলো বিসিবি ◈ সাবেক স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ চিকিৎসক লতা মারা গেছেন ◈ সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে ঔষধ-পত্র ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ◈ বিদ্যুতের দাম বাড়ছে ৮.৫০ শতাংশ, ফেব্রুয়ারিতেই কার্যকর

প্রকাশিত : ০৪ ডিসেম্বর, ২০২৩, ০১:৫৮ দুপুর
আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর, ২০২৩, ১০:০৪ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

জন্মহার বাড়াতে প্রত্যেক রুশ মহিলাকে ৮ সন্তান জন্ম দিতে পুতিনের অনুরোধ!

পুতিন

ইকবাল খান: [২] রাশিয়ায় জনসংখ্যা বৃদ্ধি করতে দেশটির মহিলাদের জন্য বিশেষ এই  অনুরোধ করেছেন প্রেসিডেন্ট পুতিন। বেশি সংখ্যক সন্তান জন্ম দেওয়াই দেশের স্বাভাবিক রীতি করে তুলতে চান বলেও জানিয়েছেন পুতিন। সূত্র: আনন্দবাজার

[৩] মঙ্গলবার মস্কোয় রাশিয়ান পিপ্লস কাউন্সিলে ভাষণ দেওয়ার সময়ে মহিলাদের কাছে এই আর্জি জানান পুতিন। দেশের পরিবারগুলিকে তিনি বড় করে তুলতে চান। ছোট পরিবার চান না।

[৪] এ প্রসঙ্গে পুতিন দেশের মহিলাদের অতীতের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন। রাশিয়ায় কয়েক প্রজন্ম আগেও মহিলারা সাত থেকে আটটি করে সন্তানের জন্ম দিতেন। পরিবারে ছিল একসঙ্গে অনেক প্রজন্মের বাস।

[৫] অতীতে এক পরিবারে সাত-আটটি করে সন্তানের যে রীতি প্রচলিত ছিল, তার অন্যতম কারণ চিকিৎসা পরিষেবার ঘাটতি। চিকিৎসা বিজ্ঞান আগে এত উন্নত ছিল না। ফলে সদ্যোজাত সন্তানের মৃত্যুর আশঙ্কা ছিল অনেক বেশি। সে কথা মাথায় রেখেই দুইয়ের অধিক সন্তান ধারণ করতেন মহিলারা।

[৬] পরবর্তীকালে চিকিৎসা বিজ্ঞানে উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে শিশুমৃত্যুর হার কমেছে। কম সংখ্যক সন্তানের জন্ম দিয়ে বাবা-মা সেই সন্তানের পড়াশোনায় অধিক খরচ করে থাকেন। ফলে সন্তান অধিক উপার্জন করেন এবং দেশে ধনী শিক্ষিত জনসমাজ গড়ে ওঠে। 

[৭] নব্বইয়ের দশক থেকে রাশিয়ায় জন্মহার কমছে। জনসংখ্যা কমে আসায় রাশিয়ায় কর্মক্ষম শ্রমিকের পরিমাণও কমে গিয়েছে। উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। অর্থনীতি হয়ে পড়ছে শ্লথ, গতিহীন। ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধের কারণে পশ্চিমি বিধিনিষেধ পুতিনের দেশের সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলেছে।

[৮] অধিক সন্তানের জন্য দেশে পুরস্কার ঘোষণা করেছেন পুতিন। তিনি জানিয়েছেন, যে সব রাশিয়ান মহিলা ১০ বা তার বেশি সন্তানের জন্ম দিয়ে তাদের বাঁচিয়ে রাখতে পারবেন, সরকারের পক্ষে তাঁরা পাবেন ১৬ হাজার ডলার।

[৯] পুতিন কিন্তু প্রথম নন। এর আগে একই আর্জি দেশবাসীর কাছে জানিয়েছিলেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-সহ একাধিক রাষ্ট্রপ্রধান। দেশকে শক্তিশালী করে তোলার জন্য জন্মহার বৃদ্ধির বিষয়টি তাঁদের কাছে প্রাধান্য পেয়ে এসেছে।

[১০] চীন সরকার কয়েক বছর আগে জনগণের জন্য তিন সন্তান নীতি চালু করেছিল। সরকার থেকে সাধারণ মানুষকে অন্তত তিনটি সন্তানের জন্ম দেওয়ার অনুরোধ করা হয়। দক্ষিণ কোরিয়াও একই পথে হেঁটেছে। অধিক সন্তানের জন্মে সে দেশের সরকার পুরস্কার ঘোষণা করেছে। সাধারণ মানুষকে সন্তানধারণে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে।

[১১] জন্মহার বৃদ্ধিতেও সচেষ্ট জাপানের সরকারও। তারা নাগরিকদের জন্য বাড়তি ছুটি মঞ্জুর করেছে। তবে শর্ত একটাই, অধিক সংখ্যক সন্তান জন্ম দিতে হবে। 

ইকে/জেএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়