শিরোনাম

প্রকাশিত : ০২ এপ্রিল, ২০২৪, ০৪:৩০ দুপুর
আপডেট : ০২ এপ্রিল, ২০২৪, ০৭:০২ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

জবি ক্যাম্পাসে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ বাক্স স্থাপন, অভিযোগ কমিটি পুনর্গঠন

অপূর্ব চৌধুরী, জবি: [২] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ক্যাম্পাস জুড়ে বসানো হয়েছে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ জমা দেওয়ার বাক্স। বিশ্ববিদ্যালয়টিতে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধকল্পে অভিযোগ কমিটিও পুনর্গঠন করা হয়েছে। 

[৩] গত ১৯ মার্চ আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকার মৃত্যুর ঘটনায় বিভাগের পক্ষ থেকে আয়োজিত শোক সভায় ক্যাম্পাসে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ বাক্স বসাতে তাৎক্ষণিকভাবে ছাত্রকল্যাণ পরিচালককে নির্দেশ প্রদান করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম। যার প্রেক্ষিতে সেদিনই বিভিন্ন স্থানে মোট পাঁচটি নতুন বাক্স স্থাপন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী উভয়েই সংশ্লিষ্ট ঘটনায় অভিযোগ জমা দিতে পারবেন।

[৪] প্রথমবারের মতো ক্যাম্পাস জুড়ে অভিযোগ বাক্স স্থাপনের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তবে বিষয়টির গুরুত্ব ধরে রাখতে নিয়মিত অভিযোগ চেক করা এবং নতুনের পাশাপাশি পূর্বের যৌন নিপীড়ন সংক্রান্ত অভিযোগগুলো নিষ্পত্তি করার দাবি তাদের।  
 
[৫] সরেজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন একাডেমিক ভবনের সপ্তম তলায় ডিন অফিসগুলোর সামনে একটি বাক্স, নতুন ভবনের নিচতলায় একটি, ভাষা শহীদ রফিক ভবনের নিচতলায় একটি, বিজ্ঞান অনুষদ প্রাঙ্গণের মনোবিজ্ঞান বিভাগের নিচতলায় এবং কলা অনুষদ প্রাঙ্গণে একটি বাক্স স্থাপন করা হয়েছে। বাক্সগুলোর চাবিও উপাচার্যের কাছে জমা রয়েছে। 

[৬] বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটিতে গত দুই বছরের বেশি সময়ে অভিযোগ এসেছে মাত্র দুটি। একটির তদন্ত প্রতিবেদন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জমা দিয়েছে কমিটি। অপরটির তদন্ত চলছে বলে জানা গেছে। 

[৭] অপরদিকে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের রিটপিটিশনের রায়ে বর্ণিত নির্দেশনার (৯নং অনুচ্ছেদ) আলোকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৩ তম সিন্ডিকেট সভায় যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধকল্পে সাত সদস্যবিশিষ্ট অভিযোগ কমিটি পুনর্গঠন করা হয়েছে। গত ১২ডিসেম্বর সিন্ডিকেট সভাটি অনুষ্ঠিত হলেও সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে হালনাগাদকৃত তথ্য উপস্থাপন করা হয়।

[৮] সেই কমিটিতে জবির প্রাণরসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. লাইসা আহমদ লিসা (আহবায়ক), ঢাবির উইমেন এন্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. আয়েশা বানু (বহিঃসদস্য), লিগ্যাল এডভোকেসি এন্ড লবি বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সাবেক পরিচালক এডভোকেট মাকসুদা আক্তার (বহিঃসদস্য), জবির আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. সরকার আলী আক্কাস (সদস্য), বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. হোসনে আরা বেগম (সদস্য), পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. পরিমল বালা (সদস্য) এবং কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. উজ্জ্বল কুমার আচার্য্য (সদস্য সচিব) হিসেবে রয়েছেন।

[৯] বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ক্যাম্পাস জুড়ে নতুন করে অভিযোগ বাক্স স্থাপনের উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। তবে কেবল অভিযোগ বাক্স স্থাপনের মধ্যেই বিষয়টি যেন সীমাবদ্ধ না থাকে। বিগত সময়ে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ করার পরেও সেগুলোর নিষ্পত্তি কিংবা তদন্তের প্রতিবেদন জমা হওয়ার পর দ্রুততম সময়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার ঘটনা আমরা দেখিনি। তবে বর্তমান উপাচার্য এই বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখছেন। যার ফলে আমরা আশাবাদী যৌন নিপীড়নের অভিযোগগুলো আর চাপা পড়ে থাকবেনা।

[১০] জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. জি এম আল-আমীন বলেন, আপাতত নতুন পাঁচটি অভিযোগ বাক্স স্থাপন করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য কমফোর্টেবল জোনেই বাক্সগুলো দেওয়া হয়েছে। বাক্সের চাবিগুলো তালার নাম্বারসহ উপাচার্য মহোদয়কে হস্তান্তর করেছি। তিনিই বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করবেন।

[১১] সার্বিক বিষয়ে জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম বলেন,আমাদের দুইজন নারী সহকারী প্রক্টর আছেন। তাদেরকে জোন ভাগ করে দেওয়া হবে। বাক্সগুলো তারা চেক করবেন। প্রতিমাসে চেক করা হবে সেগুলো। আপাতত ঈদের পর বাক্সগুলো খুলবো।  অভিযোগগুলো আমার কাছেই প্রথমে নিয়ে আসা হবে। প্রতিটি অভিযোগের বিষয়েই করণীয় গ্রহণ করা হবে।

[১২] তিনি বলেন, আরও কিছু যৌন হয়রানির অভিযোগ তদন্ত শেষ হয়েছে। পরবর্তী সিন্ডিকেট সভায় সেগুলোর বিষয়ে আমরা আলোচনা করে যথাযথ ব্যবস্থা নিব। সম্পাদনা: এ আর শাকিল

প্রতিনিধি/এআরএস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়