শিরোনাম
◈ সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসী অশুভ শক্তি বিএনপিকে প্রতিহত করতে হবে: ওবায়দুল কাদের  ◈ রাজধানী কারওয়ান বাজারে যমুনা এক্সপ্রেসের বগি লাইনচ্যুত ◈ মুজিবনগর দিবস, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ◈ তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকলে সন্ধ্যায় লোডশেডিং বাড়তে পারে ◈ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে আরও ৫০ বিজিপি সদস্যের অনুপ্রবেশ ◈ মহেশখালী সমন্বিত উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইনের খসড়া আজ মন্ত্রিসভায় উঠছে ◈ গাজীপুরে কারখানায় বয়লার বিস্ফোরণে চীনা নাগরিকের মৃত্যু ◈ প্রধানমন্ত্রীর সৌদি আরব ও গাম্বিয়া সফর বাতিল ◈ এ বছর জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.৭%: আইএমএফ ◈ মার্চ মাসে সারাদেশে ৬২৪ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫৫০, আহত ৬৮৪ 

প্রকাশিত : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৫:৩৪ বিকাল
আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৫:৩৪ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ঋণের কিস্তি থেকে রেহাই পেতে মামাতো ভাইকে খুন

জামাল হোসেন, জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা): [২] নিহত ফজলু খাঁ এর হত্যার রহস্য উন্মোচন করলেন পুলিশ। পাখি ভ্যান ও মোবাইল নিতেই আপন মামাতো ভাইকে কোমল পানীয়র সাথে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে হত্যা করেছে ঘাতক জব্বার।

[৩] বৃহস্পতিবার রাতে  জীবননগর বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে নিহত ফজলুর ফুফাতো ভাই জব্বারকে আটকের বেরিয়ে এসেছে হত্যার মূল রহস্য। উদ্ধার করা হয়েছে ফজলুর পাখিভ্যান ও মোবাইল ফোন।

[৪] ঘাতক জব্বার স্বীকার করেছে যে, ফজলু (২৯) ও  জব্বার মিয়া (২৯) সম্পর্কে আপন মামাতো-ফুপাতো ভাই। তারা দুজনই বিদ্যুতের খুঁটি তৈরির কারখানায় কাজ করতেন। জব্বার সমিতি থেকে তোলা কিস্তির টাকা শোধের জন্য ফজলুর ভ্যান ও মোবাইল কেড়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করেন। ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে ফজলুকে ডেকে কৌশলে কোমল পানীয়ের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে দেন জব্বার। পরে মৃত্যু নিশ্চিত হলে ভৈরব নদের ধারে একটি ফসলের খেতে ফেলে রেখে ভ্যান ও মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যান জব্বার।

[৫] গ্রেপ্তারের পর রোববার আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে ফজলুকে হত্যার দায় স্বীকার করে এসব কথা বলেন জব্বার। জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাবীদ হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ফজলু জীবননগর উপজেলার উথলী ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামের স্কুলপাড়ার কাশেমের ছেলে। আর জব্বার একই এলাকার মো. দলিল উদ্দিনের ছেলে।

[৬] জীবননগর থানার ওসি জাবীদ হাসান বলেন, ফজলুর মরদেহ ২১ ফেব্রুয়ারি সকালে মনোহরপুরে ভৈরব নদের পাড়ে একটি ফসলের খেত থেকে উদ্ধার করা হয়। রাত থেকেই নিখোঁজ ছিলেন জব্বার। ২২ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাঁকে জীবননগর বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে আটক করা হয়। 

[৭] তিন দিন আগে আটক হলেও জব্বার পুলিশকে বারবার মিথ্যা তথ্য দিয়ে ঘুরাচ্ছিল। অবশেষে তাঁকে নিয়ে অভিযান চালিয়ে ঝিনাইদহ ডাকবাংলো এলাকা থেকে ফজলুর ভ্যান ও মোবাইল উদ্ধার করা হয় ৷ জব্বার গতকাল রোববার ফজলুকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। তাঁকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

[৮] ওসি জাবীদ হাসান আরও বলেন, ফজলুর মরদেহ উদ্ধারের পর তাঁর বাবা মো. কাশেম আলী বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছিল। তদন্তে জব্বার হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে জীবননগর থানায় মামলা নেওয়া হয়।

[৯] উল্লেখ্য, জীবননগর উপজেলার উথলী ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামের ফজলুকে গত বুধবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার মনোহরপুর গ্রামে ভৈরব নদের পাড়ে একটি ফসলি খেত থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয়রা জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সম্পাদনা: এ আর শাকিল

প্রতিনিধি/এআরএস

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়