শিরোনাম
◈ সংঘাতের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে ◈ দেশজুড়ে সহিংসতার ঘটনায় অভিযান, গ্রেপ্তার ২৭৪৭ ◈ আজ বিদেশি কূটনীতিকরা ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শনে যাবেন ◈ চলমান সংকটে রাজশাহীতে কৃষিখাতে দিনে ২০ কোটি টাকার ক্ষতি ◈ কারফিউ শিথিল সময়ে চলবে দূরপাল্লার বাস ◈ প্রাণহানি ও ধ্বংসাত্মক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছে সম্পাদক পরিষদ ও নোয়াব ◈ ড. ইউনূস রাষ্ট্রদ্রোহী কাজ করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বাংলাদেশের সহিংসতা বন্ধে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি জরুরি আহ্বান জানিয়েছেন ড. ইউনূস ◈ নরসিংদী কারাগার থেকে পালানো ১৩৬ কয়েদির আত্মসমর্পণ ◈ কতজন শিক্ষার্থী মারা গেছেন, জানতে সময় লাগবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত : ১০ জুন, ২০২৩, ০৬:৪৫ বিকাল
আপডেট : ১০ জুন, ২০২৩, ০৬:৪৫ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

দেবিদ্বারে শিশুকে ধর্ষণের পর আস্তানা ছেড়ে পালিয়েছে ভন্ড পীর

মো. শাহিদুল ইসলাম, দেবিদ্বার (কুমিল্লা): এক ভন্ড পীরের আস্তানায় সাত বছরের ২য় শ্রেণীর এক শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। নির্যাতিত ওই শিশুটির পরিবারের অভিযোগ ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও পুলিশ এখনো মামলায় অভিযুক্ত ভন্ড পীর ইকবালকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

জানা যায়, গত ২ জুন দুপুর ১২টার দিকে দেবিদ্বার উপজেলার ফতেহাবাদ ইউনিয়নের সাইচাপাড়া গ্রামের মৃত শরাফত আলীর পুত্র ইকবাল শাহ স্থানীয় একটি কিন্ডার গার্টেনের ২য় শ্রেণীর ছাত্রীকে লিচু দেয়ার কথা বলে তার আস্তানায় নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে ওই শিশুটি বাড়িতে গিয়ে ব্যথায় ছটফট করলে তার পরিবার চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যায়। 

শিশুটির মা ও মামলার বাদী সীমা আক্তার বলেন, এলাকার একটি চক্র এ বিষয়ে তাকে মামলা না করতে চাপ দিয়ে যাচ্ছিল, তারা চেয়েছিল এ ঘটনার মীমাংশা করতে। পরে তিনি ৬ জুন রাতে দেবিদ্বার থানায় মামলা দায়ের করেন।

স্থানীয় লোকজন জানান, ইকবাল শাহ হঠাৎ পীর দাবি করে দীর্ঘ বিশ বছর যাবৎ নিজ বাড়িতে ‘সাইচাপাড়া দরবার শরীফ’ নাম দিয়ে আস্তানা তৈরী করে মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিল। বাড়িতে প্রায়ই গাঁজার মজমা বসাতো। মাঝে মধ্যে করতো ওরস। সেখানে নারীদের সাথে নিয়ে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হতো। তার এসব কাজে সহায়তা করতো স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র। তাই তার অসামাজিক কর্মকান্ডে কেউ প্রতিবাদ করতো না। 

মুঠো ফোন বন্ধ থাকায় অভিযুক্ত ইকবালের বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি। 

দেবিদ্বার থানার ওসি (তদন্ত) খাদেমুল বাহার বলেন, ডাক্তারী পরীক্ষায় ওই শিশুটিকে ধর্ষণের আলামত মিলেছে। ঘটনার পর ওই পীর আস্তানা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ায় তাকে গ্রেপ্তার করা যাচ্ছে না। পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। সম্পাদনা: ইস্রাফিল ফকির

প্রতিনিধি/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়